বিশৃঙ্খলাকেই নিজেদের পরাজয়ের কারণ বললেন মির্জা ফখরুল

বিশৃঙ্খলাকেই নিজেদের পরাজয়ের কারণ বললেন মির্জা ফখরুল
সেবা ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়কে কেন্দ্র করে নানা অভিযোগের পর এবার শোচনীয় পরাজয়ের কারণ স্পষ্ট করলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সম্প্রতি মির্জা ফখরুলের এ সংক্রান্ত একটি বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন শাখায় ভাইরাল হয়েছে। ওই বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বিএনপির পরাজয়ের কারণ হিসেবে বিশৃঙ্খলাকেই দায়ী করেছেন।

২ মিনিট ৩১ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটিতে উপস্থিতি নেতাকর্মীরা বিএনপির কারান্তরীণ চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নামে স্লোগান দিতে দেখা যায়। এমন সময় মির্জা ফখরুল ইসলাম তাদেরকে চুপ করতে বলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। বলেন, ‘এই- সবাই থামো, প্লিজ থামো, প্লিজ। শুধু স্লোগান দিলে হবে না, স্লোগান দিয়ে কিচ্ছু হয় না, যদি কাজ করতে না পারো।’

মির্জা ফখরুলের নিষেধ সত্ত্বেও স্লোগান না থামানোয় মুহূর্তেই নেতাকর্মীদের উপর রেগে যান তিনি। বলেন, ‘এখনো কিন্তু কেউ চুপ করলেন না, সমস্যাটা কী- সেটা আমি বুঝতে পারছি না। সমস্যা কোথায়? শুধু চেঁচামেচি করলে কোন কাজ হবে না।’ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে ফখরুল বলেন, আপনারা সংখ্যায় অনেক, আপনাদের আবেগ অনেক, কিন্তু শৃঙ্খলা নেই। সারা বাংলাদেশে এটাই হয়েছে।’ এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীদের কথা বলতে দেখে মির্জা ফখরুল খেপে আগুন হয়ে যান। চিৎকার করে ওঠেন।

মির্জা ফখরুলের এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে অনেকেই নানা রকম মন্তব্য করছেন। অনেকেই বলছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীদের জামানত হারিয়ে মাথা নষ্ট হওয়ায় খেপেছেন মির্জা ফখরুল। বিশ্লেষকরা বলছেন, মির্জা ফখরুল ঝিকে মেরে বউকে শেখাচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, স্মরণকালের শ্রেষ্ঠ পরাজয়বরণ করতে হয়েছে বিএনপিকে। এসবের জন্য কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি তৃণমূল কর্মীদের বিচ্ছিন্নতা-বিশৃঙ্খলাই দায়ী। তবে মির্জা ফখরুল তার বক্তব্যে কিছুটা কৌশল অবলম্বন করেছেন। মনোনয়ন বাণিজ্য, দলীয় নেতাদের সিদ্ধান্তের মতপার্থক্যসহ বিবিধ বিষয় তিনি তৃণমূলের কর্মীদের দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদেরকেও বুঝিয়েছেন। এক কথায়- এক ঢিলে দুই পাখি মারার মত ব্যাপার। মূলত, বিএনপির এই পরাজয়ের জন্য তৃণমূলের পাশাপাশি বড় ভূমিকা রেখেছে দলীয় কোন্দল ও স্বার্থপরতা।

এমন প্রেক্ষাপটে বিশ্লেষকরা বলছেন, কেন্দ্র-তৃণমূলের মধ্যে তৈরি হওয়া অনৈক্য যদি অতিসত্বর সমাধান না করা যায় তবে বিএনপি কালের গর্ভে হারিয়ে যেতে পারে। যা এরইমধ্যে শুরু হয়ে গেছে।
⇘সংবাদদাতা: সেবা ডেস্ক

,

0 comments

Comments Please