Green Chemistry & Green Engineering শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত
Green Chemistry & Green Engineering শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের উদ্যোগে
‘Green Chemistry & Green Engineering’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

Green Chemistry & Green Engineering held seminar
শিব্বির আহমেদ রানা, বাঁশখালী: সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের উদ্যোগে “গ্রীন কেমিস্ট্রি ও গ্রীন ইঞ্জিনিয়ারিং’’ শীর্ষক সেমিনার সম্প্রতি সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর (ইঞ্জিনিয়ার)এম. আলী আশরাফ,পিইঞ্জ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পুরকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপিকা ড.তাসনিমা জান্নাত।

সেমিনারে সকল শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। প্রবন্ধে ড.তাসনিমা জান্নাত গ্রীন কেমিস্ট্রি ও গ্রীন ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের উপর গবেষণালব্ধ তথ্য ভিত্তিক আলোচনা পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন।


“গ্রীন কেমিস্ট্রি” এবং “গ্রীন ইঞ্জিনিয়ারিং ” হচ্ছে দুটি নতুন বৈজ্ঞানিক ও প্রকৌশল র্দশন এবং র্সাবজনীন স্বীকৃত শব্দ যা শ্রমিকদের ও ভোক্তাদের স্বাস্থ্যগত ও পরিবেশগত সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা অর্জনের লক্ষ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিভিত্তিক পরিবেশবান্ধব রাসায়নিক পক্রিয়া যা উৎপাদিত পণ্যের মান উন্নয়ন এবং পাশাপাশি পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর উৎপাদকের পরিমাণ কমাতে পারে ও ভবিষ্যত প্রজন্মের চাহিদার সাথে কোনও সমঝোতা ছাড়াই র্বতমান প্রজম্মের চাহিদা পূরণ করতে পারে।


এটি বিজ্ঞানী ও প্রকৌশলীদরে জন্য ১২ টি তত্ত্ব প্রদান করে যাতে নবায়ন যোগ্য/কমশক্তি, অধিক নিরাপদ/কম রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করে উৎপাদন পক্রিয়া ডিজাইন করা যায়। এতে একদিকে যেমন ব্যয় কমানো যাবে অন্য দিকে জলবায়ু দূষন রোধ করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা যাবে। ড. জান্নাত আরো বলেন, নতুন কোন উৎপাদন পক্রিয়া ডিজাইন করার সময় সম্পদ ও শক্তির নবায়ন যোগ্য উৎস এবং উৎপাদক সমূহের জীবনচক্র, পুনরব্যবহার, পরিবেশের উপর এদের ক্ষতিকর প্রভাব ইত্যাদি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিতে হবে। অর্থাৎ প্রযুক্তি, শিল্পায়ন এবং উন্নয়ন অবশ্যই পরিবেশ বান্ধব হতে হবে।

বর্তমানে সারা বিশ্বে বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান ও শিল্প মালিকগণ গ্রীণ কেমিস্ট এবং গ্রীণ ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে বিশ্ব অর্থনীতিকে টেকসই উন্নয়নে পরিণত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। গ্রীণ কেমিস্ট্রি এবং গ্রীণ ইঞ্জিনিয়ারিং হবে পরবর্তী শিল্প ও সামাজিক বিপ্লব যা সমাজের সকল স্তরে বৈষম্য দুর করার পাশাপাশি আরো সুন্দর সভ্যতা বির্নিমানে ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য দূষণমুক্ত ও বাসযোগ্য পৃথিবী গড়তে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।



,