বাংলাদেশ পুলিশের প্রতি মানুষের প্রত্যাশা বেড়েছে: আইজিপি

বাংলাদেশ পুলিশের প্রতি মানুষের প্রত্যাশা বেড়েছে আইজিপি


সেবা ডেস্ক: দেশের পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ্যে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, পুলিশের প্রতি মানুষের অনেক প্রত্যাশা বেড়েছে। মানুষের সঙ্গে কোনো মতেই খারাপ ব্যবহার করা যাবে না। আপনাদের ব্যবহারের উপর নির্ভর করে পুরো বাহিনীর সম্মান।
রোববার দুপুরে ডিএমপিতে কর্মরত কনস্টেবল, নায়েক ও এএসআইদের কল্যাণ ও জনসাধারণের সঙ্গে আচরণবিধি সম্পর্কিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়ামে এ সভা হয়।

আইজিপি বলেন, ২ লাখ ১২ হাজার পুলিশ সদস্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যা কনস্টেবল, এরপর এএসআই ও এসআইদের বড় একটি সংখ্যা রয়েছে। এই বড় অংশের সবাই ঠিক থাকলে বাহিনীও ঠিক থাকবে।

তিনি বলেন, গত ১০ বছরে প্রধানমন্ত্রীর বদৌলতে পুলিশ বাহিনীর বিভিন্ন সমস্যা সমাধান হয়েছে। আমরা বিভাগীয় শহরে ৮টি ক্যাডেট কলেজ প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নিয়েছি। যেখানে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক দিয়ে আমাদের সন্তানদের লেখাপড়া করানো হবে। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে হার্টে রিং বসানো, ডায়ালাইসিস ও ক্যান্সার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে একটি বিশেষায়িত হাসপাতালে পরিণত করা হচ্ছে।

ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, জনগণের সেবা দিতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আমাদের ৭৪ জন পুলিশ সদস্য মারা গেছেন। ২০ হাজারেরও বেশি পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। করোনায় ভালো কাজ করছেন বলে মানুষ পুলিশকে মাথায় তুলে রেখেছে। করোনার সময়টায় পুলিশের সেবায় সন্তুষ্ট হয়ে অনেক মানুষ পুলিশ সম্পর্কে পজিটিভ দিক তুলে ধরেছেন।

মাদকের সঙ্গে সম্পর্কে থাকলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, আমাদের কোনো সদস্য মাদক সেবন করবেন না এবং এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হবে না। যারা মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে তাদের ছাড় না দিয়ে জেলে পাঠানো হয়েছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ বাংলাদেশ পুলিশের আয়না উল্লেখ করে তিনি বলেন, আপনারা এখানে কাজ করতে পেরে গর্ববোধ করতে পারেন। আইনের সর্বোচ্চ প্রয়োগ করে মানুষের সম্মান আদায় করতে পারেন। এই শহরে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ বসবাস করেন। পুলিশের কাজ সবার সন্তুষ্টি অর্জন করে কাজ করা। সর্বক্ষেত্রে শক্তি ব্যবহার না করে মাথার বুদ্ধি ব্যবহার করতে হবে। মনে রাখতে হবে আমরা এই চাকরিটা গর্বের সঙ্গে করতে চাই। মানুষের সামনে বুক ফুলিয়ে বলতে চাই; আমি পুলিশ। আমাদের কাজের জন্য মানুষ আমাদের সম্মান করবে।

সভাপতির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের উপরে মানুষের যে আস্থা ও বিশ্বাস আছে, তা যেন নষ্ট না হয় সেজন্য নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে। কারও দুষ্কর্মের ফলে পুলিশ বাহিনীর সম্মান নষ্ট হবে এটা আমরা কখনো হতে দেব না।

কমিশনার আরো বলেন, করোনায় ডিএমপির ২৪ জন পুলিশ সদস্য মারা গেছেন। আইজিপি স্যারের দিক নির্দেশনায় কোভিড চিকিৎসার জন্য বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়াসহ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা বৃদ্ধি করা হয়েছে। সিনিয়র অফিসারদের দিয়ে নিয়মিত করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসার খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। করোনা সংক্রমণ রোধে ডিএমপির প্রত্যেক সদস্যকে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে।

এর আগে, কনস্টেবল, নায়েক ও এএসআইদের মধ্য থেকে বেশ কয়েকজন সদস্য আইজিপি কাছে বিভিন্ন বিষয়ের উপর তাদের মতামত ও সমস্যা তুলে ধরেন।

শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।

Dara Computer Laptops