বাঁশখালীর বাজার শীতকালীন সবজিতে সয়লাব, যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে

বাঁশখালীর বাজার শীতকালীন সবজিতে সয়লাব, যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে
সেবা হট নিউজ: বাহারি সবজির সয়লাভ বাঁশখালীর শিলক‚ টাইমবাজারে। ছবি: শিব্বির আহমেদ রানা



শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের বাঁশখালীর বিভিন্ন হাট-বাজারে শীতকালীন শাক সবজি উঠতে দেখা গেছে। 

বিভিন্ন ধরনের সবজি উৎপাদনের ক্ষেত্রে বাঁশখালীর নামটি বার বার সবার আগে চলে আসে। 

বিভিন্ন ধরনের সবজি উৎপাদনের কারণে চলতি বছরে শীত মৌসুমে বাঁশখালীর পাহাড়ি এবং সাগর উপক‚লে সহস্রাধিক হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজি চাষ করা হয়েছে এবং বর্তমানে এই উৎপাদিত সবজি চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

প্রতিদিন সকাল বেলায় বাঁশখালীর শিলক‚প টাইমবাজার, বাণীগ্রাম বাজার, সাহেবের হাট, গুনাগরী, রামদাশ মুন্সির হাট, বৈলছড়ি খান বাহাদুর বাজার, জলদী মিয়ার বাজার, নাপোড়া বাজার ও পুঁইছড়ি প্রেম বাজারে সবজির হাট বসে। 

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকার ক্রেতারা এসে তা সারাদেশে নিয়ে যায়। বাঁশখালীর সবজি একদিকে বিষমুক্ত অপরদিকে সু–স্বাদু হওয়ায় দেশের সর্বত্র এই সবজির চাহিদা রয়েছে অনেক বেশি। 

বাঁশখালী উপজেলা প্রতিবছর রেকর্ড সংখ্যক সবজি উৎপাদনে অন্যান্য উপজেলাকে ছাড়িয়ে যায়। বিষমুক্ত এবং তরতজা সবজির জন্যই বাঁশখালী উপজেলা বিখ্যাত। 

এমনিতে আগাম সবজি উৎপাদনের কারণে বাঁশখালীর সবজি সবার আগে বাজারে উঠে।

বাঁশখালীর পুকুরিয়া থেকে পুঁইছড়ি পর্যন্ত প্রতিটি ইউনিয়নে শাকসবজি উৎপাদিত হয়। 

একদিকে পাহাড়ি এলাকা অপরদিকে সাগর উপক‚লে প্রচুর পরিমাণে সবজি উৎপাদন হওয়ায় বর্তমান বাঁশখালীর চাষীরা কর্মব্যস্ত দিন কাটাচ্ছে। 

বাঁশখালীর পাহাড়ি এলাকা পুকুরিয়া, সাধনপুর, কালীপুর, বৈলছড়ি, জলদী, শীলক‚প, চাম্বল, পুঁইছড়ি এলাকায় প্রচুর পরিমাণে সবজি উৎপাদিত হচ্ছে। 

বাঁশখালীর উপক‚লীয় অঞ্চল গন্ডামারা, সরল, বাহারছড়া, খানখানাবাদ, কাথারিয়া এলাকায় প্রচুর পরিমাণ টমেটোর চাষ হয়েছে। 

শসা, মিষ্টি লাউ, বেগুন সহ নানা ধরনের সবজি উৎপাদিত হচ্ছে এসব অঞ্চলে। 

নতুন সংযোজন হিসেবে পাহাড়ি এলাকায় সোনালী ফসল আদার ব্যাপক ফলন হয়েছে চলতি মৌসুমে।

বাঁশখালীর কাঁচাবাজার গুলোর মধ্যে শিলক‚প টাইমবাজার অন্যতম। 

এ অঞ্চলে বারোমাস পাহাড়ি বামের ও ডানের ছড়া লেকের পানির সহজলভ্যতায় ব্যাপকভাবে সবজির চাষাবাদ হয়। সবজির ফলনও বেশী হয়। 

প্রতিদিন শহর থেকে পাইকারেরা এখানে বড় বড় ট্রাক নিয়ে ভিড় জমায়। 

সকাল সকাল ট্রাকভর্তি করে কাঁচা সবজি টাইমবাজার থেকে চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। 

বর্তমানে বাঁশখালীতে প্রতিদিন কয়েকশ মণ উৎপাদিত সবজি বিশেষ করে বেগুন, শিম, টমেটো, চাল কুমড়া, লাউ এবং শসা, ম‚লা প্রচুর পরিমাণ পাইকারী হারে বিক্রি করছে ব্যবসায়ীরা। 

ফলে চাষীরা প্রচুর পরিমাণে লাভবান হচ্ছে। বাঁশখালীতে উৎপাদিত সবজি সংরক্ষণ এবং উন্নত প্রশিক্ষণ পেলে চাষীরা আরো বেশী লাভবান হবে বলে আশা করেন। 

চাষীদের আরো প্রশিক্ষণ ও চাষাবাদে সহযোগিতা করলে অনেক বেশী লাভবান হবে বলে জানান স্থানীয় চাষীরা।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আবু সালেক জানান, চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩৭০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরণের সবজির আবাদ হয়েছে। 

মৌসুমি সবজি চাষাবাদের চলমান পক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। যার মধ্যে উপজেলার উপক‚লীয় এলাকায় ৩৫০ হেক্টর জমিতে টমেটোর চাষ হয়েছে। 

বর্তমানে বাঁশখালীর টমেটো বাজারে জায়গা করে নিয়েছে। 

তাছাড়া শীম, বেগুন, করলা, মুলা, বরবটি,লাউ, মিষ্টি কুমরা, ঝিঙ্গা, শসা, বাঁধাকপি, ফুলকপি প্রধান। 

তিনি আরো বলেন, বাঁশখালী সবজি উৎপাদনের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভ‚মিকা পালন করে যাচ্ছে দীর্ঘদিন থেকে। 

এখানকার চাষীরা সারা বছর নানা ধরনের শাকসবজি চাষ করে থাকে এবং লাভবানও হয় প্র্রচুর। তাছাড়া আমরা কৃষি অফিস সবসময় কৃষকদের পরামর্শ ও সহযোগীতা দিয়ে যাচ্ছি। 

স্থানীয় বাজারে চাহিদা মিটিয়ে বাঁশখালীর বিষমুক্ত ও ফ্রেশ সবজি যাচ্ছে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে।


  


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।