উল্লাপাড়ায় নলকূপ স্থাপনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ

🕧Published on:

 : সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় বিএ ডিসির গভীর নলকূপ স্হাপনকে কেন্দ্র করে দুই দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হামলা ভাংচুরের ঘটনায় ৮ জনকে আসামি করে কৃষক মজনু বাদী হয়ে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করে। 

উল্লাপাড়ায় নলকূপ স্থাপনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ



 মামলা সুত্রে জানা যায়, উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের ভায়ড়া গ্রামের ১৪৬ মৌজার আরএস খতিয়ান নং- ০১ আরএস দাগ নং- ৫৬৩ এবং আরএস খতিয়ান নং- ১২৯ আরএস- ৭৪৪ দাগে ভায়ড়া গ্রামবাসীর মালিকানাধীন দুটি গভীর নলকূপ রয়েছে। নলকূপ দুটি গ্রামবাসী সমবায়ের ভিত্তিতে ডিজেল ইঞ্জিনের মাধ্যমে পরিচালনা করা অবস্থায় গ্রামের কতিপয় ব্যক্তি গ্রামবাসীকে ভুল বুঝিয়ে গভীর নলকূপ দুটি বিএডিসির নিকট হস্তান্তর করে বিনা খরচায় বৈদ্যুতিক সংযোগ পাবার আশ্বাস দিয়ে বিএডিসি বরাবর আবেদন করে। এই ঘটনার পর থেকেই গ্রামের সাধারণত মানুষ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায় এবং বিরোধের সুত্রপাত হয়। ঘটনার একপর্যায়ে গত ১৪ ডিসেম্বর তারিখ বুধবার সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় দিকে আবদুল মজিদের নেতৃত্বে ভায়ড়া গ্রামের মোঃ ছাকোয়াত হোসেনের ছেলে মনিরুল ইসলাম, আহসান আলী সরকারের ছেলে মোঃ মাসুদ পারভেজ ও মিলন সরকার, মৃত আবুল হোসেনের ছেলে, মোঃ আলহাজ্ব আলী, মৃত জয়নালের ছেলে, মোঃ ছাকোয়াত হোসন, মোঃ জাবেদ আলীর ছেলে, মোঃ মোমিন খন্দকার, মৃত আবুল হোসেনের ছেলে আব্বাস সহ অজ্ঞাত ৭/৮ জন দুষ্কৃতকারী লোহার রড,কাঠের বাটাম,শাবল, বাঁশের লাঠি, দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে বেআইনি ভাবে বসত বাড়ির টিনের ঘরের বেড়া, দরজা, জানালা, পানির মোটরসহ বাড়ির গেট ভাংচুর করে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে ষ্টীলের ট্যাংক ভাঙ্গিয়া ট্যাংক থেকে দুই লাখ টাকা জোরপূর্বক ভাবে মারপিট করে ছিনিয়ে নেয়। আমি চিৎকার করিলে পাড়ার লোকজন আগাইয়া আসিলে আসামীরা পালাইয়া যায় । 

উল্লেখ্য আব্দুল মজিদ সরকার একজন এলাকার চিন্হিত সত্রাসী তাহার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা যায়। জিআর নং- ২৬৭ ( উল্লা) ধারা-৪৪৭, ৩২৩, ৩২৬, ৩৮৫, ৩৭৯, ১১৪, ৩৪ পেনাল কোটে উক্ত মামলাটি বর্তমানে বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।