শিক্ষা ব্যবস্থায় আর কতো আবোল তাবোল পড়বে আমাদের সোনামনিরা!
শিক্ষা ব্যবস্থায় আর কতো আবোল তাবোল পড়বে আমাদের সোনামনিরা!

শিক্ষা ব্যবস্থায় আর কতো আবোল তাবোল পড়বে আমাদের সোনামনিরা

যেখানে নৈতিকতার সমন্বয় থাকেনা সেখানে শিক্ষা অপূর্ণ। যেখানে বাস্তবতা থাকেনা সেখানে শিক্ষা সাগরে ভাসমান লোহা! যেখানে শিক্ষা চরিত্র গঠনের কাজ করতে অক্ষম সেখানে শিক্ষা নিজেই মেরুদন্ডহীন। যে শিক্ষা তথাকথিত আধুনিকতার নামে নির্বাসিত সে শিক্ষা ঢালপালা বিহীন গাছের মতো। আজকাল শিক্ষা ব্যবস্থায় এতোটা পরিবর্তন হয়েছে যে, যা বলাই বাহুল্য। নৈতিক শিক্ষার লেশমাত্র আর নেই। আমাদের কচিকাঁচাদের এমন শিক্ষা দিচ্ছে যে, যা তাদের মেধাবিকাশের অন্তরায় ছাড়া বৈ কিছুই নয়। এখানে ডা. মোহাম্মদ শহিদুল্লাহর কথা মনে পড়ে যায়। তিনি বলেছেন- "আমি বটতলার বাজে উপন্যাস পড়িনি"। 

বটতলার বাজে উপন্যাস বলতে তিনি বুঝিয়েছিলেন, যে উপন্যাস কিংবা সাহিত্য শিক্ষার চেয়ে কুশিক্ষার আবেদন সৃষ্টি করবে সেটাই বটতলার বাজে উপন্যাস। আজকাল দেশে শিক্ষার হার যেভাবে বাড়ছে সেভাবে ভালো মানুষের সংখ্যা বাড়েনি। যে হারে "এ প্লাস" বেড়েছে সেভাবে মেধাবী শিক্ষার্থী বাড়েনি। আর "এ প্লাস" পাওয়া মানে উত্তম শিক্ষিত তা নয়। সম্প্রতি দেশে অনেক "এ প্লাস" প্রাপ্তদেরকে যখন সাধারণ কিছু প্রশ্ন জিগ্যেস করা হয়েছে তখন তারা আজব কিছু উত্তর দিয়েছে।

অবাক হওয়ার মতো গঠনার জন্ম দিয়েছে জাতীর চাক্ষুসে। এখন "এ প্লাস" একটি মেশিনের মতো। কতো এপ্লাসে দেশ চেয়ে গেলো, কই শিক্ষা ব্যবস্থায় তেমন পরিবর্তন আসেনি। দিন দিন নৈতিকতা হারাচ্ছে জাতীর এই সন্তানেরা। কারন, শিক্ষা ব্যবস্থায় এখন সব বটতলার বাজে উপন্যাসের সয়লাব ঘটেছে। আমাদের কচিকাঁচাদের কে শিক্ষার হাতে কড়িতেই শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে - 
"হাট্টিমা টিম টিম
তারা মাঠে পাড়ে ডিম
তারা হাট্টিমা টিম টিম
তাদের খাড়া দুটো শিং।" 
এভাবে অবাস্তব, অবান্তর বুলি শিখানো হচ্ছে আমাদের নতুন প্রজন্মকে। এভাবে প্রতিটি শ্রেনীতে এমন কিছু পাঠ্য সংযোজন হয়েছে যা পড়ে আমাদের নতুন প্রজন্ম কিছুই শিখতে পারবেনা। আমরা কতো আগডুম বাগডুম শিখিয়ে দিচ্ছি তাদের, যা তাদের মেধা বিকাশের অন্তরায়। আজকে হঠাৎ করে চতুর্থ শ্রেনীর বাংলা বইয়ে একটা কবিতা দেখলাম যা পড়াতে গিয়ে নিজেও বিব্রত হলাম! কবিতার নাম - "অাবোল তাবোল"। সব পড়ে চুলছেড়া বিশ্লেষণ করে দেখলাম সবই ত আবোল তাবোল। বলুন এতে করে চতুর্থ শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা কি শিখবে? এখানে নৈতিকতার সমন্বয় কই হলো? শিক্ষা ব্যবস্থায় পাঠ্য সংযোজনে আমাদের আরো সংবেদনশীল হওয়া, দায়ীত্বজ্ঞান থাকা খুবই দরকার বলে আমি মনে করি। অন্যতায় আমাদের এই শিক্ষা কোনভাবেই নৈতিকতার সমন্বয় ঘটাতে পারবেনা। নৈতিকতার সমন্বয় না থাকলে গাদা গাদা সার্টিফিকেট ধারীকে আমি শিক্ষিত বলতে পারি না। এভাবে কতো আবোল তাবোল পড়তে পড়তে যে কোন সময় জাতীও আবোত তাবোল হয়ে পড়বে! 

-লেখক
শিব্বির আহমেদ রানা 
shibbirahmed90@gmail.com



,