ভারতের সমর্থন পাওয়ার জন্য বিএনপির প্রধান বাধা

ভারতের সমর্থন পাওয়ার জন্য বিএনপির প্রধান বাধা

সেবা ডেস্ক: ভারতের সমর্থন পেতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির শীর্ষ নেতারা দেশটির বিভিন্ন থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠান ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের সাথে বৈঠক করছেন। 

এ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে প্রবল আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। জানা গেছে, ক্ষমতায় আসতে বিএনপির পক্ষ থেকে বিভিন্ন অঙ্গিকারনামাও দেয়া হয়েছে ভারতকে। তবে ভারতের সমর্থন পেতে বিএনপির সামনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে প্রধান দুইটি ইস্যু। 

এক-জামায়াতে ইসলামের সঙ্গে রাজনৈতিক সম্পর্ক ছেদ, দুই- তারেক রহমানের নেতৃত্ব ভারতের না।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি সরকারের আমলে উত্তর-পূর্ব ভারতের বিদ্রোহীরা বাংলাদেশে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়ার সময় থেকে বিএনপির উপরে ভারতের আস্থা বিলীন হতে শুরু করে। 

সে সময় দশ ট্রাক অস্ত্রের চালানের ঘটনাসহ জঙ্গিবাদের অর্থায়নের মতো ঘটনা নিয়ে ভারত বিএনপির প্রতি বেশ উদ্বিগ্ন মনোভাব প্রকাশ করে। আর এসবের নেপথ্য ভূমিকার জন্য দায়ী করা হয় বিএনপির শরিক দল জামায়াতে ইসলামীকে।

ফলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ওপরে জামায়াতে ইসলামের প্রভাব মুক্ত করতে ভারত চায় জামায়াতের সঙ্গে রাজনৈতিক সম্পর্ক ছেদ করে রাজনৈতিক মাঠে নতুন করে নাম লেখাক বিএনপি। যদিও বিএনপির পক্ষে তা সম্ভব নয় বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

জানতে চাইলে একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, জামায়াতে ইসলামী ২০ দলীয় জোটের শরিক দল হলেও বিএনপির সিদ্ধান্ত ও অভ্যন্তরীণ বিষয়ে দলটির প্রভাব অন্যরকম। 

এছাড়া জামায়াতে ইসলামীর সাংগঠনিক বিষয়াদি নিয়ন্ত্রণ হয় আন্তর্জাতিকভাবে। আর এর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত পাকিস্তান। সুতরাং জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি কোনো সিদ্ধান্ত নিতে গেলে দলটি পাকিস্তানের সমর্থন হারাবে। 

অন্যদিকে যেহেতু জামায়াতে ইসলামের রাজনীতি সহিংসপূর্ণ সেহেতু দলটিকে বাদ দিয়ে ক্ষমতায় আসলে জামায়াত-বিএনপির মধ্যে তৈরি হবে যুদ্ধপূর্ণ অবস্থা। 

ফলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি যদি জামায়াতকে বাদ দিয়ে নির্বাচনে এসে ক্ষমতা পেতে চায় তবে তা যেমন আলোরমুখ দেখবে না তেমনি ক্ষমতা না আসতে পারলে একদিকে জামায়াতকে হরাবে অন্যদিকে চিরতরে বিলীন হয়ে যাবে প্রধান বিরোধী দল হয়ে থাকার স্বপ্ন। কেননা জামায়াতে ইসলামীর সমর্থন নিয়ে বিএনপি বৃহৎ রাজনৈতিক দল হিসেবে পরিচিত।

এদিকে বিগত সময়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সহিংসতার পেছনে দলে যার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি তিনি হলেন লন্ডনে পালাতক দলটির ভাইস চেয়ারম্যান ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান। তারেকের নেতৃত্ব ও রাজনীতি নিয়ে মোটেও খুশি নয় ভারত। সুতরাং নেতৃত্বের পরিবর্তন চায় ভারতও। 

নেতৃত্ব গ্রহণের মতো একমাত্র ব্যক্তি হিসেবে দলে রয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। যিনি বর্তমানে জেলে। জেলমুক্তি ছাড়া তার নেতৃত্ব গ্রহণও সম্ভব নয়। ফলে এখানেও ধরাশায়ী বিএনপি। 

এমতাবস্থায় বিশ্লেষকরা বলছেন, ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে দুইটি বড় ইস্যুতে আটকে আছে বিএনপি। যা থেকে উত্তরণ অসম্ভব।


,
themeforestthemeforest