বর্ণাঢ্য আয়োজনে গাইবান্ধায় কালের কন্ঠের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে গাইবান্ধায় কালের কন্ঠের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, কেক কাটা, আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে গাইবান্ধায় গতকাল বৃহস্পতিবার কালেরকন্ঠের ১০ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে। 

কালেরকন্ঠের পাঠক ফোরাম শুভ সংঘ জেলা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত এ সব কর্মসূচীতে প্রধান অতিথি ছিলেন গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন। 

সকাল ১১টায় গাইবান্ধা প্রেসক্লাব থেকে বর্ণাঢ্য বিশাল শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহর প্রদক্ষিন করে। শোভাযাত্রায় সাংবাদিকরা ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, নারী সংগঠনের নেতাকর্মী ও জাতীয় শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নুরুল আলম স্যারের আমার বাংলা বিদ্যাপীঠসহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। 

প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে শুভ সংঘের সভাপতি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক প্রমতোষ সাহার সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের সভাপতি কেএম রেজাউল হক, প্রধান উপদেষ্টা গোবিন্দলাল দাস, রেডিও সারাবেলা স্টেশন ম্যানেজার শান্তা সুত্রধর, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শিরিন আকতার, দৈনিক জনসংকেত সম্পাদক দীপক কুমার পাল, আরিফুল ইসলাম বাবু, মহিলা পরিষদের জেলা সম্পাদক রিকতু প্রসাদ, রেজাউন্নবী রাজু, কালেরকণ্ঠের জেলা প্রতিনিধি অমিতাভ দাশ হিমুন প্রমুখ। 

এর আগে অতিথিদের হাতে ফুলেল শুভেচ্ছা তুলে দেন প্রধান অতিথি। অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

কালেরকণ্ঠের শুভ কামনা করে কেক কাটার সময় শিল্পী ও শুভ সংঘের কর্মীরা সমস্বরে ‘আগুনের পরশ মনি ছোঁয়া প্রাণে’ গেয়ে ওঠেন। প্রধান অতিথি মেয়র মিলন বলেন, প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কালেরকণ্ঠ দৃঢ় ভূমিকা পালন করে। যে ধারাবাহিকতায় উন্নয়ন বিষয়ক ইতিবাচক সংবাদ পরিবেশন, অনিয়ম দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে কালেরকণ্ঠ পাঠকের মনে স্থান করে নেয়। পৌর মেয়র আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে কালেরকণ্ঠের আত্মপ্রকাশ এক গৌরবময় ইতিহাসের স্বীকৃতি। তিনি সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে বসুন্ধরা গ্র“পের ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন, মানবতার সেবায় তাদের অবদান তুলনাবিহীন। সবশেষে মিলনায়তনে উপস্থিত দর্শক শ্রোতাদের মিষ্টিমুখ করানোর মধ্য দিয়ে শেষ হয় এই আনন্দময় আয়োজন।
⇘সংবাদদাতা: গাইবান্ধা প্রতিনিধি

,

0 comments

Comments Please