যে কারনে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বাড়ির পুরস্কার জিতল সাতক্ষীরার হাসপাতাল

যে কারনে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বাড়ির পুরস্কার জিতল সাতক্ষীরার হাসপাতাল



পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বাড়ি এখন বাংলাদেশে

সেবা ডেস্ক: বিশিষ্ট স্থপতি কাশেফ চৌধুরী’র নকশা করা বাংলাদেশে’র সাতক্ষীরা’র উপকূলীয় এলাকা শ্যামনগরে’র ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল। উপজেলা সদরে’র কাছে সোয়ালিয়া এলাকায় হাসপাতালটি’র অবস্থান।

 

২৫ জানুয়ারি শ্যামনগ’র ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে’র ভবনটিকে ২০২১ সালে’র রিবা অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী ঘোষণা করে আন্তর্জাতিক স্থাপত্য সংস্থাটি’র জুরি বোর্ড।

 

১৬ নভেম্ব’র ঘোষিত ২০২১ সালে’র রিবা অ্যাওয়ার্ডে’র সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান পেয়েছিল ভবনটি। স্থপতি কাশেফ চৌধুরী’র প্রতিষ্ঠান আ’রবানা’র তত্ত্বাবধানে তৈরি নকশা অনুসারে নির্মিত হয়েছে এটি। স্থপতি কাশেফ চৌধুরী এ’র আগে আগা খান স্থাপত্য পু’রস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন।

 

জার্মানি’র বার্লিনে ডেভিড চিপা’রফিল্ডে’র নকশা করা একটি গ্যালারি আ’র উইলকিনসন আইরে’র করা ডেনমার্কে’র একটি সাইকেল ফুটব্রিজকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে বাংলা’র নিভৃত কোণে’র এই প্রকৃতিসংলগ্ন স্থাপনা।

 

পু’রস্কারে’র প্রতিক্রিয়ায় কাশেফ চৌধুরী যুক্তরাজ্যে’র গার্ডিয়ান পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি উত্ফুল্ল এটা ভেবে যে পু’রস্কা’র আমাদে’র আরো অনেককে ধ’রনে’র স্থাপত্য গড়ে তুলতে উৎসাহিত ক’রবে, যা মানুষ প্রকৃতি উভয়ে’র কথা মাথায় রাখে।

 

জুরি বোর্ডে’র চেয়া’রম্যান ওডিল ডেক বলেন, ‘স্থাপনাটি মানবতা সু’রক্ষা’র প্রতিচ্ছবি। এটি স্বাস্থ্যসেবা’র অসম সুযোগ অসহায় জনগোষ্ঠী’র ওপ’র জলবায়ু পরিবর্তনে’র চ’রম প্রভাবে’র মতো বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জে’র সঙ্গেও যুক্ত।

 

দক্ষিণ বাংলাদেশে’র জলাবদ্ধ ভূমিতে লালচে ইটে’র তৈরি ছিমছাম হাসপাতাল ভবনটি চা’রপাশে’র প্রকৃতি’র সঙ্গে মিল রেখে গড়া। এ’র মধ্য দিয়ে বয়ে গেছে আঁকাবাঁকা খাল। ভবনটিকে বলা হয়েছে জলবায়ুসচেতন নকশা’র আদর্শ। ন্যূনতম উপক’রণে নির্মিত হয়েছে এটি। পানি স্থাপনা’র একটি কেন্দ্রীয় বিষয়। ভবনে’র মধ্যকা’র খালটিতে সঞ্চিত বৃষ্টি’র পানি প্রচণ্ড গ’রমে’র সময় চা’রপাশ শীতল রাখতে সহায়তা করে।

 

চা’রপাশে’র লবণাক্ত পানি’র দিকে ইঙ্গিত করে গার্ডিয়ানকে কাশেফ চৌধুরী আরো বলেন, ‘এখানে চা’রদিকে পানি। কিন্তু সব সময় তা ভালো পানি নয়। কা’রণেই তিনি ভবনটি’র নকশা এমনভাবে করেছেন, যাতে তা বৃষ্টি’র পানি ধরে রাখা’রও এক ভাণ্ডারে পরিণত হয়। প্রতিটি অংশে’র ছাদ প্রাঙ্গণে পড়া সব বৃষ্টি’র ধারা গিয়ে পড়ে কেন্দ্রীয় খালে। সেই পানি আবা’র জমা হয় স্থাপনাটি’র দুই পাশে’র দুটি জলাধারে। ভবনটি’র মধ্যে রাখা হয়েছে গ্রামীণ আবহ। প্রাঙ্গণজুড়ে কৌণিকভাবে স্থাপিত হয়েছে স্থাপনাগুলো। কাঠামোটি বৃষ্টি’র প্রবল ঝাপটা থেকে ‘রক্ষা’র মতো করেই তৈরি। ‘রয়েছে বায়ু চলাচলে’র সুব্যবস্থা। এ’র কাঠামো’র বিশেষ বৈশিষ্ট্যে’র কা’রণে দিনে’র বেলায় কোনো কৃত্রিম আলো’র প্রয়োজন হয় না।

 

শ্যামনগ’র ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে’র কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৮ সালে’র ২২ জুলাই। নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল ২০১৩ সালে।

 

প্রকৃতি’র সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে থাকা উপকূলীয় মানুষকে চিকিৎসাসেবা পৌঁছে দিয়েছে ৮০ শয্যা’র এই  আরোগ্যালয়। শ্যামনগ’র উপজেলা’র জলবায়ু পরিবর্তন প্রভাবিত লবণাক্ত এলাকায় এই হাসপাতালটি নির্মাণ করেছে বেস’রকারি উন্নয়ন সংস্থা ফ্রেন্ডশিপ। ছয়জন চিকিৎসক, ১২ জন নার্স কয়েকজন সহকারী  আছেন এতে। তিনটি অপারেশন থিয়েটারে’র মাধ্যমে অস্ত্রোপচা’র হয় এখানে। প্রত্যন্ত এলাকা হলেও সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ এবং অ্যাম্বুল্যান্স সুবিধা থাকায় হাসপাতালে’র জরুরি বিভাগ খোলা থাকে ২৪ ঘণ্টা।

 

হাসপাতালটি’র প্রতিষ্ঠাতা, নির্বাহী পরিচালক প্যারিসে অবস্থান’রত রুনা খান কালে’র কণ্ঠকে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম সীমিত সামর্থ্যে’র মধ্যে স্থানীয় বিপন্ন মানুষে’র জন্য সাধ্যমতো সেরা সেবা দেওয়া’র জন্য। চেয়েছিলাম এমন একজন স্থপতি’র সঙ্গে কাজ ক’রতে, যিনি এটা উপলব্ধি ক’রবেন। কাশেফ চৌধুরী আমাদে’র সেই প্রত্যাশা পূ’রণ করেছেন।

 

স্থানীয়ভাবে হাসপাতালটি’র কার্যক্রম পরিচালনা দেখভাল করা মো. শাহীন আলম অসীম রোজারিও বলেন, ‘কাশেফ চৌধুরী’র সঙ্গে কাজ করা ছিল আমাদে’র জন্য অত্যন্ত আনন্দে’র। তিনি স্থানীয় উপক’রণ ব্যবহা’র করে দক্ষতা’র প্রমাণ দিয়েছেন। পর্যাপ্ত আলো, বাতাস, মাটি, পানি’র সমন্বিত পরিবেশে শ্যামনগরে’র ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে’র সৌন্দর্য হয়ে উঠেছে আরো প্রাণবন্ত। ’ 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।