নন্দীগ্রামে ইউএনও’র নোটিশ পেয়ে লজ্জায় স্কুলছাত্রের বিষপান

নন্দীগ্রামে ইউএনও’র নোটিশ পেয়ে লজ্জায় স্কুলছাত্রের বিষপান



 : বগুড়ার নন্দীগ্রামে নবম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের অভিযোগের পর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রেরিত বিচারের মুখোমুখি হওয়ার নোটিশ পেয়ে লজ্জায় বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে মারুফ হোসেন (১৬) নামের ১০ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্র। 


সে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের খড়না গ্রামের মানিক হোসেনের ছেলে এবং ভাটরা খান চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র। 


গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে নিজ বাড়িতে বিষপান করে স্কুলছাত্র মারুফ। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিজরুল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সন্ধ্যায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ তোফাজ্জল হোসেন মন্ডল বলেন, স্কুলছাত্র মারুফকে চিকিৎসা দেয়ার পর এখন কিছুটা আশংকামুক্ত রয়েছে।

কুমিড়া পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, নবম শ্রেণির ছাত্রীকে (১৫) ইভটিজিংয়ের অভিযোগে স্কুলছাত্র মারুফ, জাকিরুল, বুলবুল ও আলকদর রকির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন ভাটরা গ্রামের ফারুক হোসেন। পৃথকভাবে একই অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও’র) কাছেও করেন। একটি অভিযোগ তদন্তের জন্য থানা থেকে কুমিড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের দায়িত্বে দেওয়া হয়। গত সোমবার দুপুরে কুমিড়া পুলিশ দুই পক্ষকে মুখোমুখি করার জন্য ডেকে পাঠায়। তদন্ত কেন্দ্রে বিবাদী পক্ষ উপস্থিত হলেও বাদী পক্ষ উপস্থিত হননি। হুবহু আরেকটি অভিযোগে সোমবার (২৮ মার্চ) উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বাক্ষরিত বিচারের মুখোমুখি হওয়ার শুনানীর নোটিশ গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে বাদী ও বিবাদীদের কাছে প্রেরণ করা হয়। মঙ্গলবার সকালে স্কুলছাত্র মারুফের বাড়িতে নোটিশ গেলে বাবা-মা ছেলেকে গালমন্দ করে। লজ্জায় ও অভিমানে দুপুরে নিজ বাড়িতেই বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে মারুফ। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। 

ইভটিজিংয়ের অভিযোগকারী ফারুক হোসেন বলেন, থানায় দেওয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে তার কন্যাকে কুমিড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যেতে বলা হয়েছিল। কিন্তু পুলিশের কাছে কন্যা যাবে না। একারনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে দেখা করলে তিনি উভয় পক্ষকে নোটিশ করেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুমিড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (ওসি) মো. মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, উভয় পক্ষকে ভুল বোঝাবুঝির সমাধানের জন্য ডাকা হয়েছিল। তবে বিবাদীরা উপস্থিত হলেও অভিযোগকারী আসেননি। 

এপ্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিফা নুসরাত বলেন, ইভটিজিংয়ের অভিযোগ পেয়ে বুঝানার জন্য উভয়পক্ষকে নেটিশ করা হয়েছে। 


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।