ঘাটাইলে জমি সংক্রান্ত বিরোধে বিধবা বাড়ি ছাড়া!

ঘাটাইলে জমি সংক্রান্ত বিরোধে বিধবা বাড়ি ছাড়া!



 : টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এক সপ্তাহ যাবত রেখা বেগম নামে এক বিধবা বাড়ি ছাড়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই বিধবা স্থানীয় মাতাব্বর, ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের নিকট গিয়েও কোন সুরাহা পাননি। নিজের বাড়িতে শান্তিতে বসবাস ও নিরাপত্তার দাবিতে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।


রেখা বেগম ঘাটাইল উপজেলার জামুরিয়া ইউনিয়নের মধ্যকর্ণা গ্রামের মৃত মফিজুল ইসলামের স্ত্রী।


রেখা বেগমের অভিযোগ, তিন বছর আগে তার স্বামী মারা যায়। রেখা বেগমের স্বামীর রেখে যাওয়া বসতবাড়ীসহ জমি বিভিন্নভাবে দখলের পায়তারা শুরু করে তার দেবর জহির উদ্দিন। প্রতিবাদ করলে রেখা বেগমকে মারধর ও প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছে জহির উদ্দিন। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মাতাব্বর ও ইউপি সদস্য এবং চেয়ারম্যানকে অবগত করলেও কোন সুরাহা হয়নি। সর্বশেষ গত ৩০ এপ্রিল রেখা বেগম তার বাড়ির আঙিনা থেকে মাটি কেটে বাঁশঝাড়ে দিতে গেলে তাকে বাধা দেয় জহির উদ্দিন।


তার বাধা উপেক্ষা করে মাটি ফেলতে গেলে জহির উদ্দিন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। পরে এক পর্যায়ে রেখা বেগমকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য স্বাধীন আহমেদ সাইদ ও চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম খান হেস্টিংসকে অবগত করেন। বিষয়টি নিয়ে চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য সামাজিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করলেও তা সমাধান হয়নি। পরে বিধবা রেখা বেগম নিজের নিরাপত্তার দাবিতে ঘাটাইল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।


অভিযোগে বিবাধী হিসেবে জহির উদ্দিন ও তার স্ত্রী এলিজা বেগমের নাম উল্লেখ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানার এসআই পলাশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনার পর পাশের বাড়ির খালেদার বাড়িতে আশ্রয় নিলেও তাকেও হুমকি দিচ্ছে জহির উদ্দিন।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক স্থানীয় অধিবাসী জানান, জহির উদ্দিনের ছেলে খালিদ হাসান লিটন ঘাটাইল এলজিইডিতে চাকরি করে। সেই প্রভাব খাটিয়ে রেখা বেগমের স্বামী মারা যাওয়ার পর তাদের জমি দখলের চেষ্টা করছে তারা। জমি ছেড়ে না দেওয়ায় রেখা বেগমকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও বিভিন্ন সময় হুমকি এবং মিথ্যা অপবাদ দেয়। রেখা বেগম ৬/৭ দিন যাবত তার বাড়িতে যেতে পারছে না। এলাকাবাসীর পক্ষে তারা রেখা বেগমের নিরাপত্তা দাবি করে।


রেখা বেগম বলেন, আমার জমি থেকেই মাটি কাটতে ছিলাম। তারপর আমাকে বাধা দেয়। এক পর্যায়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয় জহির উদ্দিন। আমি এক সপ্তাহ যাবত বাড়ি যেতে পারছি না। সমাজে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে। আমি নিরাপত্তা দাবি করছি।


খালেদা বেগম বলেন, আমার বাড়িতে রেখাকে আশ্রয় নিলে আমাকে বিভিন্ন হুমকি ও মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছে জহির উদ্দিন এবং তার ছেলে লিটন। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।


জহির উদ্দিন বলেন, আমি রেখাকে কোন হুমকি দেইনি। সে আমার জায়গা থেকে মাটি কাটতে গেলে আমি তাকে বাধা দিয়েছি। জমি মেপে নেওয়ার পর তাকে মাটি কাটতে বলছি।


স্থানীয় ইউপি সদস্য স্বাধীন আহমেদ সাইদ বলেন, ঈদের আগে তাদের বাড়ির কাছে গেলে ঝগড়ার বিষয়টি জানতে পারি। পরে সামাজিকভাবে সমাধানের চেষ্টা চলছে।


জামুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম খান হেস্টিংস বলেন, আমার কাছে জমি পরিমাপের আবেদন করলে তাদের জমি সার্ভেয়ার দিয়ে পরিমাপ করে বুঝিয়ে দেয়া হবে।


ঘাটাইল থানার এসআই পলাশ বলেন, অভিযোগের পর সরেজমিন তদন্ত শেষ করা হয়েছে। পরে স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যান সামাজিক ভাবে সমাধান করবে বলে জানান। তারা সমাধান করতে না পারলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।