গাইবান্ধায় জমি নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৪, ভাঙচুর-লুটপাট

গাইবান্ধায় জমি নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৪, ভাঙচুর-লুটপাট



 : গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় জমি-জমা সংক্রান্ত বিবাদকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চারজন আহত হয়েছেন। সেই সাথে ঘরবাড়ি ভাঙচুরসহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ফুলছড়ি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ফুলছড়ির উদাখালী ইউনিয়নের পুর্বছালুয়া গ্রামের আছর উদ্দিনের বড় বউয়ের ছেলে আবদুল করিম এবং ছোট বউয়ের সন্তান আবদুর রশিদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসেছিলো আবদুল করিমের। আবদুল  করিম ফুলছড়ি সহকারী জজ কোর্টে অন্য ১৪/২০২১ নং মোকাদ্দমা করিয়া ২৯ মে রায় ও ডিক্রি পান। একপর্যায়ে ১৪ জুলাই রাতে করিমের বাড়িতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে সাউন্ডবক্সের সাউন্ড কমানোকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। ওই দিন রাত ১১টার দিকে অভিযুক্ত আবদুর রশিদসহ তার লোকজন শত্রুতা করে আবদুল  করিমের বাড়িতে লাঠি, ছোড়া, শাবল নিয়ে বাড়ি-ঘরে হামলা চালায়। এসময় আবদুল  করিম বাঁধা দিতে গেলে তাকেও হত্যার উদ্দেশ্যে বেধরক মারপিট করা হয়। সেলিম মিয়া তার ভাইকে রক্ষা করতে গেলে তাকেও বেধরক লাঠিপেটা করে তারা।

একপর্যায়ে আবদুর রশিদ ও রেখা রানীসহ অন্যরা আবদুল করিমের ঘরে প্রবেশ করে বাক্সের তালা ভেঙ্গে নগদ এক লক্ষ টাকা লুট করে নেয়। তান্ডব চলাকালে সেলিম মিয়া পুলিশকে বিষয়টি অবগত করলেও পুলিশ কোন সাড়া দেয়নি বলে অভিযোগ করেন তিনি। 

এদিকে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে আবদুল করিম, সেলিম ও সরোয়ারসহ অন্যদেরকে ফুলছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেয়।

অভিযুক্ত আবদুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা সৎ ভাই। দীর্ঘদিন ধরে জমি-জমা নিয়ে বিবাধ আছে। সেদিন সাউন্ডবক্সের সাউন্ড কমানোকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির ঘটনা স্বীকার করলেও রাতে মারামারির ঘটনা তিনি অস্বীকার করেন। থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। 

এবিষয়ে অভিযোগকারী সেলিম মিয়া বলেন, আমাদের রোগীরা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। কিন্তু প্রতিপক্ষরা আমাদেরকে আবার আক্রমনের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। এ জন্য আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। গত শনিবার আমি ফুলছড়ি থানায় আবদুর রশিদ (৩৫), বাবু মিয়া (২৭), বাবলু (২৫) আনিছুর রহমানসহ অজ্ঞাত আরও ২৫ থেকে ৩০ জনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছি। 

এ বিষয়ে ফুলছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কাওছার আলীর সাথে মুঠোফোন কথা হলে তিনি বলেন, উভয় পক্ষ থানায় অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।