সরিষাবাড়ীতে মায়ের হাতে মেয়ে হত্যা: মামলা দায়ের

সরিষাবাড়ীতে মায়ের হাতে মেয়ে হত্যা মামলা দায়ের



 : জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে রহস্যজনক ভাবে মায়ের হাতে শিশু মেয়ে মোহনা হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদিকে ৪ জুলাই বিকেল ৫ঃ৩০ মিনিটে ভাটারা ইউনিয়নের কুটুরিয়া গ্রামের বাবার বাড়ীতে জানাযা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ আব্দুল আলিম। শিশুটি চন্দনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলো। 


রহস্যজনক  শিশু হত্যা ঘটনায় এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। পরকীয়া ঘটনা মেয়েটি দেখে ফেলায় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।  সঠিক তদন্তের দাবী জানিয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।  


মামলার এজাহার ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, উপজেলার কুটুরিয়া গ্রামের কাশেমের ছেলে মোহাম্মদ আলীর সাথে ৯ বছর পুর্বে পৌর এলাকার চর বাঙ্গালী গ্রামের মোঃ বেলাল সরকারের মেয়ে বেদেনার সাথে বিবাহ হয়।বিবাহের পর তাদের সংসারে বড় মেয়ে নিহত মোহনা (৭) ও ছোট ছেলে মোঃ ইয়াসমিন (৪) এর জন্ম হয়। 

এদিকে জীবিকার তাগিতে ২০১৯ সালে দেশ ত্যাগ করে বিদেশ (সৌদী আরব) চলে যায়। স্বামী সৌদি আরব থাকায় পরিবারের কারো সাথেই বনি বনা হচ্ছিল না বেদেনার। প্রায় সময়ই মেয়ে-ছেলেকে হত্যা করার হুমকি দিত। ৩ জুলাই রোববার সকালে বাড়ীতে কেউ না থাকায় ঘরে বড় মেয়ে মোহনা (৭)কে ডেকে নিয়ে গলা চিপিয়া হত্যার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে সীল-পাটার সীলের আঘাতে মাথা থেতলে যাওয়ায় প্রচুর রক্ত ক্ষরণে ঘটনাস্থলেই মারা যায় শিশুটি। সংবাদ পেয়ে পুলিশ হত্যাকারী মাকে গ্রেফতার ও আলামত  উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। নিহত শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করলে ময়না তদন্তের জন্য  মর্গে প্রেরণ করে পুলিশ।  পরে শিশুটির দাদা বাদী হয়ে সরিষাবাড়ী থানায় ৩০২ পেনাল কোড-১৮৬০ ধারার হত্যা করার অপরাধে থানায় মামলা দায়ের করে। মামলা নং -৫,তারিখ-৩/৭/২০২২ ইং।  হত্যাকারী মাকে গ্রেফতার করে কোর্টের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। 


এ বিষয়ে সরিষবাড়ী হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ দেবাশীষ রাজবংশী  জানান, ঘটনাটি দুঃখজনক।  হাসপাতালে নিয়ে আসার পুর্বেই শিশুটি মারা গিয়েছিল।  


মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার এসআই মোঃ আঃ খালেক জানান,  লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জামালপুর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার এজাহার নামীয় এক মাত্র আসামী শিশুটির মা বেদেনা আক্তারকে গ্রেফতার করে কোর্টে পাঠানো হয়েছে।  মামলার তদন্ত চলছে। এ ঘটনায় আরো কেউ জড়িত থাকলে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।