কুড়িগ্রামে হালকা কুয়াশায় শীতের বিচরণ, ক্রমেই বাড়ছে ঠান্ডার প্রকোপ

 : কুড়িগ্রামে সারাদিন ভর থাকে সূর্যালোক এবং জনজীবন স্বাভাবিক। কিন্তু সন্ধ্যা হলেই হালকা কুয়াশায় ছেয়ে যেতে শুরু করে চারদিক। রাতভর ঠান্ডার পর ভোররাতে হালকা কুয়াশা শুরু হয়। সাথে প্রচন্ড ঠান্ডা অনুভূত হয়। এ অবস্থায় জেলায় জানান দিচ্ছে শীতের আগমনী বার্তা।

কুড়িগ্রামে হালকা কুয়াশায় শীতের বিচরণ, ক্রমেই বাড়ছে ঠান্ডার প্রকোপ



 সীমান্তবর্তী ও হিমালয় পাদদেশের উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামে শীতের আগমনের চিত্র এটি। দিনের তাপমাত্রা অনেকটা সহনীয় থাকলেও সন্ধ্যা হতেই তা হ্রাস পেয়ে বাসিন্দাদের উষ্ণ কাপড় পরিধানে বাধ্য করে আসছে। কেউ কেউ কাঁথা কম্বল গায়ে দিয়ে রাত যাপন শুরু করেছেন। 

এতে শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য সমস্যা শুরু হয়েছে বেশি। 

জেলার রাজারহাট উপজেলা কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার জানায়, নভেম্বরের শুরুতে তাপমাত্রা অনেকটা কমে জেলার ওপর দিয়ে শীত অনুভূত হচ্ছে। 

তবে এ মুহুর্তে ঘণ কুয়াশার সম্ভাবনা নেই। জেলায় গত কয়েকদিন ধরে ক্রমেই তাপমাত্রা হ্রাস পেতে শুরু করেছে। 

এ তাপমাত্রা  আরও হ্রাস পাওয়ার আশঙ্কা করছে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সাথে বাড়বে কুয়াশার মাত্রা।

এদিকে, শীতের আগমনে ব্যস্ত সময় পার করছেন ধনুকররা। নিজেদের প্রয়োজনীয় পোশাক সংগ্রহে নিতে নি¤œ আয়ের মানুষজন ভ্রাম্যমান কাপড়ের দোকানগুলোতে ভিড় করতে শুরু করছেন। প্রতিদিন শীত নিবারণে মানুষজন লেপ তোষক ও গরম কাপড়ের ওর্ডার দিয়ে তৈরি করতে শুরু করেছেন। 

সদর উপজেলার ধরলা নদী পাড়ের বৃদ্ধ দিন মজুর মহুবর মিয়া জানান, গরমের দিনই আমাদের জন্য ভালো। শীত আসলেই হামরা খুব ক্ষতিত পড়ি যাই। বিড়ম্বনার শিকার হওয়া নাগে। শীত বস্ত্রের অভাবে যেমন কষ্ট পাই তেমনি মাঠে কাজ করে রোজগার করাও কষ্টকর হয়। 

রাজারহাট উপজেলার টগরাইহাট এলাকার বাসিন্দা ফজলুল হক জানান, এখনও তেমন ঠান্ডা না পড়লেও সন্ধ্যের পর থেকে শুরু করে রাতভর বেশ ঠান্ডা কদিন ধরে চলছে।ভোরবেলা থেকে সুর্য ওঠা পর্যন্ত এ ঠান্ডা চলমান থাকে। এখনও কুয়াশা না পড়লেও ঠান্ডা অনেক বেড়েছে।ছোট বাচ্চা কাচ্চা ও বুড়োদের জন্য সমস্যা। 


এ ব্যাপারে রাজারহাট আবহাওয়া কৃষি পর্যবেক্ষণাগারের কর্মকর্তা মো:আব্দুস সবুর জানান, নভেম্বর শুরু হওয়ার সাথে শীতের তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে এবং তা পর্যায়ক্রমে আরো বাড়বে। তাপমাত্রা ১৯ থেকে ২৯ডিগ্রিতে ওঠানামা করছে। 


এদিকে,জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, শীত এ অঞ্চলের আগাম সমস্যা। আমরা তা মোকাবেলায় সরকারিভাবে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়ে ইতোমধ্যেই মন্ত্রণালয়ে কম্বল চেয়ে প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি। আশা করছি কোন সমস্যা হবেনা। 


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।