SebaBanner

হোম
কুড়িগ্রামে থ্রি-হুইলারের দুটি কমিটির দ্বন্দ চরমে উলিপুরে ৭ থ্রি-হইলার চালককে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ঃ ১৮.১২.১৭

কুড়িগ্রামের উলিপুর ও সদর উপজেলার থ্রি-হুইলারে দুটি আলাদা কমিটির দ্বন্দ চরমে উঠেছে। দ্বন্দের জের ধরে রোববার উলিপুরে থ্রি-হইলার স্টান্ডে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ৭ থি-হইলার চালককে বেদম মারপিট করে গুরুত্বর আহতসহ থ্রি-হুইলার ভাংচুর করেছে উলিপুর উপজেলা কমিটির থ্রি-হইলার চালক ও কমিটির লোকজন।

আহতরা হলেন সাগর খান (২৭), মোঃ সিরাজুল ইসলাম (২৮), নাজমুল হোসেন (৩০), মকবুল হোসেন (২৫), বাদশা (৩০), মোঃ কামাল হোসেন (৩২) ও স্বপন কুমার (৩৩)। আহতদের উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তারা সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে।

এ ঘটনার পর থেকেই কুড়িগ্রাম-চিলমারী সড়কে থ্রি-হুইলার চলাচল বন্ধ রয়েছে এবং দুই সমিতির মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, কুড়িগ্রামে যাত্রীবাহী থ্রি-হুইলারে সংখ্যা বেড়ে গেলে থ্রি-হুইলার পরিবহন মালিক সমিতি জেলা কমিটি গঠন করে। এরপর পরই উলিপুরের থ্রি-হুইলার মালিকরা কুড়িগ্রাম জেলা অটো, সিএনজি, অটো টেম্পু পরিবহন মালিক সমিতি গঠন করে। কিন্তু কুড়িগ্রাম থেকে উলিপুর হয়ে চিলমারী সড়কে থ্রি-হুইলার চলাচলে জঠিলতা তৈরি হয়। কুড়িগ্রাম থ্রি-হুইলার মালিক সমিতি উলিপুর সমিতিকে শহরের কলেজ মোড় ছাড়া সবগুলো স্টান্ডে থ্রি-হুইলারে যাত্রী তুলতে দেয়া নিয়ে সমঝোতার ভিত্তিতে দুই সমিতি যাত্রী পরিবহন করে আসছিল।

বর্তমানে উলিপুর সমিতিতে থ্রি-হুইলারের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় তারা কুড়িগ্রামের কলেজ মোড়স্থ থ্রি-হুইলার স্টান্ডটি দখল করতে আসে। এতে কুড়িগ্রাম সমিতি বাধা দিলে উলিপুর স্টান্ডে অবস্থানরত কুড়িগ্রাম সমিতির ৭জন থ্রি-হুইলার চালককে বেদম মারপিটসহ গাড়ী ভাংচুর করা হয়।

এব্যাপারে কুড়িগ্রাম থ্রি-হুইলার মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ আব্দুল আউয়াল মিলন জানান, আমরা কুড়িগ্রাম থ্রি-হুইলার মালিক সমিতির পক্ষ থেকে কুড়িগ্রাম থেকে চিলমারী সড়কের ৬টি স্টান্ডের মধ্যে ৪টি স্টান্ডই ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সড়কে যাত্রী চলাচলের উপর ভিত্তি করে আমরা কুড়িগ্রামে মাত্র ৬৩টি থ্রি-হুইলার দিয়ে যাত্রী পরিবহন করলেও উলিপুর মালিক সমিতি ৭০ হাজার করে টাকা নিয়ে নতুন নতুন থ্রি-হুইলার মালিককে সমিতির অর্ন্তভুক্ত করতে করতে ১৩০টি থ্রি-হুইলার সমিতির অর্ন্তভুক্ত করে সড়কে ছেড়ে দিচ্ছে। থ্রি-হুইলারের তুলনার যাত্রীর সংখ্যা কম হওয়ায় তারা সমঝোতার মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়া কলেজ মোড়স্থ স্টান্ডটিও দখলে নিতে আসে। এতে বাধা দেয়ার বিষয়টি মোবাইলে উলিপুর সমিতিকে জানানোর সাথে সাথেই আমাদের সাথে কোন যোগাযোগা ছাড়াই চালকদেরকে মারধর করে গুরুত্বর আহত করে। বিষয়টি আমরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে অবহিত করেছি।

এব্যাপারে উলিপুর গঠিত কুড়িগ্রাম জেলা অটো, সিএনজি, অটো টেম্পু পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জানান, আমি অসুস্থ বাড়িতে আছি। চালকদের মারধরের বিষয়ে কিছু জানি না।

উলিপুরে গঠিত সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোতালেব হোসেনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

,

Home-About Us-Contact Us-Sitemap-Privacy Policy-Google Search