গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার: ক্রেতাদের উপছে পড়া ভিড়
গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার: ক্রেতাদের উপছে পড়া ভিড়

ব্যস্ত সময় পার করছেন ব্যবসায়ীরা। গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার।। ক্রেতাদের উপছে পড়া ভিড়।।।

গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার: ক্রেতাদের উপছে পড়া ভিড়

মোঃ রুবেল আহমদ, গোলাপগঞ্জ: মুসলিম ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে খুশির দিন পবিত্র ইদুল ফিতরকে সামনে রেখে গোলাপগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। ধনী, গরীব, মধ্যবিত্ত পরিবার গুলোর মধ্যে চলছে কেনাকাটার আয়োজন। শিশু,কিশোরদের বায়না পুরনের জন্য মা-বাবাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এবার ও মেয়েদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে ভারতের বিভিন্ন টিভি সিরিয়াল ও সিনেমা নায়িকাদের নামানুসারে পোষাকগুলো।

সরেজমিন গোলাপগঞ্জের ওয়াহাব প্লাজা, নুর ম্যানশন, আল মারওয়া, কুশিয়ারা মার্কেট, আসিদ আলী মার্কেট সহ
বিভিন্ন মার্কেটে ঘুরে দেখা যায় ক্রেতাদের ভিড়ে তিল পরিমান ঠাই নেই। লোকে লোকারণ্য এসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলোতে নিম্ন, মধ্যবিত্ত, উচ্চ মানের সব ধরনের কাপড় ও পোশাকাদি বিক্রি হওয়ার কারনে ক্রেতা সাধারণ এসব দোকান গুলোতে ভিড় করতে দেখা গেছে। শুধু পোশাক নয়, জুতার দোকান গুলোতে উপচেপড়া ভিড় চলছে। সকাল থেকে গভীর রাত অবদি চলছে কেনাকাটা। তবে পোশাকের আকাশছোয়া দামে বেকায়দায় ক্রেতারা। অল্প আয়ের মানুষ পোশাক কিনতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন। চড়া দাম হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ ও করছেন অনেকে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের দাবী এবার তৈরী পোশাকের দাম ক্রেতাদের হাতের নাগালের মধ্যেই রয়েছে।

ক্রেতারা বলছেন, বর্ষা মৌসুমের বৃষ্টি শুরু হওয়ায় অনুকুল পরিবেশের সুযোগ পাওয়ায় কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন। গোলাপগঞ্জের শপিং মল গুলোতে এখন ভালো ভালো দোকানপাট গড়ে উঠায় চাহিদা মতো সব কিছু পাওয়া যাচ্ছে। তবে শিশু ও মেয়েদের পন্য অতিরিক্ত দাম চাওয়া হচ্ছে।


কয়েক জন বিক্রেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতি বছরের ন্যয় এই বার ও ভারতীয় বিভিন্ন সিরিয়াল ও নায়িকাদের কাপড় চাহিদার শীর্ষে অবস্থান করছে।
ক্রেতাদের চাহিদা মোতাবেক সব ধরনের কালেকশন রাখা হয়েছে। এদিকে গজ কাপড়ের দোকান, ট্রেইলার্স ও লেডিস কর্নার গুলোতে সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা গেছে। রোজার শুরু থেকেই ট্রেইলার্স গুলোর কারিগরদের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। দিনরাত সমানতালে কাজ করছেন তারা। জেসমিন টেইলার্সের কারিগররা ও পরিচালক শরীফ আহমদ জানান, তারা সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত পোষাক তৈরী করছেন। এমনটি চলবে চাদ রাত পর্যন্ত।

গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আব্দুল আহাদ বলেন, ক্রেতারা যাতে নির্বিগ্নে কেনাকাটা করতে পারে সেই জন্য ব্যবসায়ীরা সচেষ্ঠ রয়েছেন। সেই সাথে ক্রেতাদের ক্রয় সুবিধার্তে ব্যবসায়ীরা নানান ধরনের উদ্যোগ গ্রহন করেছে এবং গোলাপগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির পক্ষথেকে স্বেচ্ছা সেবক নিয়োগ করা হয়েছে। আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার্স ইন্চার্য ফজলুল হক শিবলী জানান, ঈদুল ফিতরের হাট বাজার গুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে এবং সার্বক্ষনিক পুলিশী টহল জোরদার রাখা হয়েছে।



, ,