‘ইফতার-টিফতার নয়, গুরুত্বপূর্ণ কথা বলতে এসেছি’, ইফতার পার্টিতে তারেক
‘ইফতার-টিফতার নয়, গুরুত্বপূর্ণ কথা বলতে এসেছি’, ইফতার পার্টিতে তারেক

‘ইফতার-টিফতার নয়, গুরুত্বপূর্ণ কথা বলতে এসেছি’, ইফতার পার্টিতে তারেক


সেবা ডেস্ক: হঠাৎ করেই লন্ডনের উদ্দেশ্যে ফখরুল ব্যাংকক ছাড়লে রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। তারেক জিয়ার সাথে দেখা করতে গেলেও বিএনপি সূত্র গুলো গণমাধ্যমে জানায়, ১০ জুন লন্ডন বিএনপি আয়োজিত ইফতার পার্টিতে যোগ দিতেই ফখরুলের লন্ডনে গমন। ফখরুলের সাথে এ ইফতার পার্টির প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন তারেক রহমান।

১০ জুন লন্ডনের হোটেল রয়েল এজেন্সিতে আয়োজন করা হয় এ ইফতার পার্টি। এ ইফতার পার্টির মূল কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুল ইসলাম। ব্যাপক গাম্ভীর্যতার সাথে ধর্মীয় এ সমাবেশের আয়োজন করা হলেও, প্রধান অতিথি হিসেবে তারেক রহমানের আচার আচরণ উপস্থিত সবাইকে বিব্রত করে তোলে। ইফতার পার্টিতে প্রধান অতিথি হিসেবে পাঞ্জাবি পরিধান না করে শার্ট ও প্যান্ট পরিধান করে আসেন তারেক। যা উপস্থিত সবার কাছে দৃষ্টিকটু ব্যাপার হয়ে দাড়ায়। ইফতার পার্টিতে অংশ নেয়া এক অতিথির কাছ থেকে জানা যায়, ইফতারের প্রায় ২ ঘন্টা আগে আলোচনা অনুষ্ঠান শুরু করার কথা থাকলেও তারেক রহমান নির্ধারিত সময়ের থেকে ১ ঘন্টা দেরি করে সমাবেশে উপস্থিত হন। ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির আসন গ্রহণকালে তাকে নাকি বলতে শোনা যায়, এসব ইফতার টিফতার তার জন্যে নয়, তিনি এখানে শুধু কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলতে এসেছেন, ইফতার করতে নয়।

তার ভাষণের ডাক এলে তিনি উপস্থিত সবাইকে সালাম না দিয়েই তার বক্তৃতা শুরু করেন, এবং বক্তৃতাকালে তার কথা জড়িয়ে আসছিলো বলে অভিযোগ করে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ। এক বিশ্বস্ত সূত্র হতে জানা যায়, তারেকের মদ্যপানের অভ্যাস গত কয়েক বছরে তীব্র আকার ধারণ করে, তাই ইফতার পার্টির মত ধর্মীয় সমাবেশেও মাতাল হয়ে আসতে দ্বিধাবোধ করেননি তিনি। তার এমন কর্মকান্ডে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ ছাড়াও দলীয় নেতা কর্মীরা বেজায় ক্ষুব্ধ। তারেকের এমন আচরণ যে শুধু শিষ্টাচার বহির্ভূত কর্মকান্ড তাই নয়, বরং ইসলাম ধর্ম অবমাননারও শামিল।