প্রযুক্তিকে কাজে লাগানো হবে প্রশ্নফাঁস রোধে

প্রযুক্তিকে কাজে লাগানো হবে প্রশ্নফাঁস রোধে

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। আদর্শ জাতি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। এই শিক্ষা ঠিক ভাবে হচ্ছে কি না, শিক্ষার্থীরা কতটুকু বুঝতে পারলো


প্রযুক্তিকে কাজে লাগানো হবে প্রশ্নফাঁস রোধে

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। আদর্শ জাতি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। এই শিক্ষা ঠিক ভাবে হচ্ছে কি না, শিক্ষার্থীরা কতটুকু বুঝতে পারলো এগুলো জানা ও বুঝার জন্য নেয়া হয় বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা। এছাড়া দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় রয়েছে শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বেশ কিছু পরীক্ষা। সেই গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাগুলোর অতিক্রম করার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী গড়ে উঠে দেশের ভবিষ্যৎ কান্ডারি হিসেবে। কিন্তু সেই শিক্ষার্থীরা যখন তাদের এই গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাগুলোতে পরীক্ষার আগের দিন রাতেই অপেক্ষায় থাকে প্রশ্নের, তখন শিক্ষার্থীদের মেধা সুষ্ঠুভাবে বিকাশ লাভের জন্য বাধার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

দেশের নতুন সরকার এবার কঠোরভাবে প্রতিহত করবে এই অসাধু চক্রদের যারা প্রশ্নফাঁসের সাথে জড়িত। বর্তমান সরকারের শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ডা. দিপু মনি ও উপমন্ত্রী হিসেবে রয়েছে মহিবুল হাসান চৌধুরীকে। শিক্ষা খাতে দুর্নীতি রোধে উপমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষা খাতে দুর্নীতি বন্ধে জিরো টলারেন্স (শূন্য সহনশীলতা) নীতি গ্রহণ করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস রোধে আরও কঠোর হবে বর্তমান সরকার। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রশ্ন মুদ্রণ করা হবে। প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে মুদ্রণ থেকেই হতে হবে সচেতন এবং রাখতে হবে কড়া দৃষ্টি।’ এমনকি প্রশ্নপত্র মুদ্রণের বিষয়টি কমিয়ে আনার চিন্তাভাবনা চলছে বলে জানায় নতুন এই শিক্ষা উপমন্ত্রী।

উপমন্ত্রী আরও বলেন, নতুন নতুন আরও অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরণ করা হবে। পুরোনো সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো অবকাঠামোগত ভাবে আরও উন্নত করা হবে। বৃদ্ধি করা হবে আসন সংখ্যা। তিনি অভিভাবকদের প্রশ্নপত্রের পেছনে না দৌঁড়ানোর জন্য আহ্বান করেছে এবং প্রশ্নপত্র চাই এই মনোভাব পরিহার করার জন্য বলেছেন। কারণ শ্রেণিকক্ষে পাঠদান এবং সিলেবাসের ওপর শিক্ষার্থীরা জোর দিলে এই সমস্যা থাকবে না।

বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে উপমন্ত্রী বলেন, অর্থনীতি উপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থা সৃষ্টি হয়েছে বলে আমাদের সন্তানেরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে কাজ করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে। এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষা বিস্তৃত করতে দাতা সংস্থাসহ সরকারের অর্থায়নে ব্যাপক পরিকল্পনা নেওয়া হবে। আগামী দিনে শিক্ষা হবে কর্মমুখী। অর্থাৎ অর্থনৈতিকভাবে দক্ষতা বৃদ্ধি শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তন করা সরকারের লক্ষ্য।

দেশে শিক্ষা নিয়ে যাতে কোনো রকম দুর্নীতি না হয় এ নিয়ে বদ্ধ পরিকর বর্তমান সরকার। নতুন বছরে শিক্ষা খাত থেকে সব রকম দুর্নীতি দূর করার জন্য যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নিবে বর্তমান সরকার।

⇘সংবাদদাতা: সেবা ডেস্ক

,

0 comments

Comments Please