ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ঝুঁকি এড়াতে প্রস্তুত বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ঝুঁকি এড়াতে প্রস্তুত বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন
বাঁশখালীর ঘন্ডামারা ইউনিয়ন সিপিপির স্বেচ্ছাসেবক মোঃ আলী হায়দার ও তার টিম মাইকিং করে সতর্ক করে দিচ্ছে
শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী সংবাদদাতা: বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত অতিপ্রবল বেগে ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র ঝুঁকি এড়াতে চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার উপকূলীয় অঞ্চল গুলোতে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে উপজেলা প্রশাসন ও ঘূর্ণিঝড় অফিস। অাহুত ঘূর্ণিঝড়ের ঝুঁকি এড়াতে  কন্ট্রোল রুম ও মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোমেনা আক্তার জানান, আহুত ঘূর্ণিঝড় বুলবুল'র ঝুঁকি এড়াতে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে। তাছাড়া উপকূলীয় এলাকায় শুক্রবার (৮ নভেম্বর) দুপুর থেকে মাইকিং করে সতর্কতা জারী করে নিরাপদ স্থানে অবস্থান করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বাঁশখালী উপজেলা ঘূর্ণিঝড় অফিসের রেডিও অপারেটর মিটু কুমার দাশ জানান, উপজেলার পুকুরিয়া, খানখানাবাদ, বাহারছড়া, কাথারিয়া, সরল, শীলকূপ, গন্ডামারা, শেখেরখীল, পুঁইছড়ি, ছনুয়া ইউনিয়নকে উপকূলীয় অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই ১০টি ইউনিয়নে নিযুক্ত ১হাজার ৬৫জন প্রশিক্ষিত  সিপিপি'র সেচ্ছাসেবক যে কোন আহুত পরিস্থিতির ঝুঁকি এড়াতে প্রস্তুত রয়েছেন। স্থানীয় লোকজনকে সতর্ক করতে উপকূলীয় এলাকা গুলোতে মাইকিং করা হচ্ছে এবং সংকেত পতাকা ২টি উত্তোলন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ১০২টি আশ্রয় কেন্দ্রের বেশ কয়েকটি কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে এবং রের্ড এলার্টের ঘোষণা এলে অন্যন্য আশ্রয় কেন্দ্র গুলোও খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বাংলাদেশ উপকূলের ৫০০ কিলোমিটারের মধ্যে পৌঁছে যাওয়ায় শুক্রবার সন্ধ্যায় মোংলা ও পায়রায় ৭ নম্বর এবং চট্টগ্রাম বন্দরে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত জারি হয়।

আবহাওয়া অফিস সূত্র, মংলা ও পায়রা বন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত, চট্টগ্রাম কে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। তাছাড়া "ঘূর্ণিঝড়টি শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে সারা রাত বাংলাদেশ অতিক্রম করবে। বাংলাদেশ যখন অতিক্রম করবে বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১০০-১২০ কিলোমিটার থাকতে পারে। এজন্য সব ধরনের প্রস্তুতি রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।"


 -সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0 comments

Comments Please