ধুনটে আনন্দ স্কুলের টিসির বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

ধুনটে আনন্দ স্কুলের টিসির বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ
রফিকুল আলম,ধুনট (বগুড়া): বগুড়ার ধুনট উপজেলায় আনন্দ স্কুলের ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর (টিসি) শারমিন আকতারের বিরুদ্ধে প্রায় ১০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে তাকে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিও) কামরুল হাসান স্বাক্ষরিত শোকজ নোটিশটি মঙ্গলবার সকালে হাতে পেয়েছেন শারমিন আকতার। 

উপজেলার শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, ঝরেপড়া শিশুদের পাঠদানের লক্ষ্যে রিচিং আউট অব স্কুল চিলড্রেন (রস্ক ফেজ-২) প্রকল্পের আওতায় ৫ বছর আগে এ উপজেলায় ৬৭টি আনন্দ স্কুলে পাঠদান কার্যক্রম শরু করা হয়। ওই সকল শিক্ষার্থীর মাঝে ২০১৯ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ১ হাজার ৮জন শিক্ষার্থী ফরম পুরন (ডিআর ভুক্ত) করে। প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য মডেল টেষ্ট পরীক্ষার বাবদ ২০০টাকা, পরীক্ষা কেন্দ্রে যাতায়াত বাবদ ৮০০ টাকা এবং উপবৃত্তির বাবদ ৭২০ টাকা করে সরকারি ভাবে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য ১ হাজার ৭২০টাকা হিসেবে মোট বরাদ্দের পরিমান ১৭ লাখ ৩৩ হাজার ৭৬০টাকা। গত ১৭ নভেম্বর কাগজ কলমে ৯৪৮জন শিক্ষার্থীর মাঝে ১৬ লাখ ৩০ হাজার ৫৬০টাকা বিতরণ দেখানো হয়েছে। অবশিষ্ট ৬০জন শিক্ষার্থী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় উপস্থিত না থাকায় তাদের অনুকুলে বরাদ্দকৃত ১ লাখ ৩ হাজার ২০০ টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সোনালী ব্যাংক ধুনট শাখা থেকে ১৭ লাখ ৩৩ হাজার ৭৬০টাকা উত্তোলনের পর প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ১ হাজার ৭২০টাকার স্থলে ৭০০ টাকা করে প্রদান করেন শারমিন আকতার। সেই হিসেব অনুযায়ী আনন্দ স্কুলের ৯৪৮ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ১ হাজার ২০ টাকা করে বিতরন না করে ৯ লাখ ৬৬ হাজার ৯৬০ টাকা আত্মসাত করেছেন। তিনি প্রায় ৫ মাস আগে এই কর্মস্থলে যোগদানের পর বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের সাথে জড়িয়ে পড়েন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে আনন্দ স্কুলের ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর (টিসি) শারমিন আকতার বলেন, সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তা আবুল হোসেনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে সঠিক নিয়মে টাকা বিতরণ করা হয়েছে। তারপরও আনন্দ স্কুলের কতিপয় শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে আমাকে শোকজ করা হয়েছে। যথাসময়ে শোকজ নোটিশের জবাব দেওয়া হবে।

সোনালী ব্যাংক ধুনট শাখার কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর হাতে ১ হাজার ৭২০ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। তারপরও ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর  শারমিন আকতারের বিরুদ্ধে কেন অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে তা আমার জানা নেই।

ধুনট উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (টিও) কামরুল হাসান বলেন, আনন্দ স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের অভিযোগের ভিত্তিতে ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটরকে শোকজ করা হয়েছে। এক কার্যদিবসের মধ্যে সন্তোষজনক জবাব না পেলে তার বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


 -সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0 comments

Comments Please