জামালপুরে অন্ধ ভিক্ষুকের জমি দখলের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

জামালপুরে অন্ধ ভিক্ষুকের জমি দখলের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন


জামালপুর সংবাদদাতা: জামালপুরে মহল অন্ধ ভিক্ষুক রবিজল প্রামানিকের জমি দখলে নিয়েছে প্রভাবশালী মহল।  সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ  মাহবুবুর রহমান ও স্থানীয় ভূমি অফিসের যোগসাজশে জমি দখলে নেয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভিক্ষুক পরিবার। 
১৬ নভেম্বর সকাল ১০টায় জামালপুরে পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগি ভিক্ষুকের স্ত্রী আমেনা বেগম এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, আমার স্বামী একজন অন্ধ ভিক্ষুক ছিলেন। তিনি ২০১৯ সালে পরলোক গমন করেন। আমাদের একটি ছেলে দুইটি মেয়ে রয়েছে। আমার স্বামী মারা যাবার পর আমার পরিবার দুর্বিষহ জীবন অতিবাহিত করছি। পরিবারের উপার্জনক্ষম কোনো ব্যক্তি নেই। মাথা গোঁজার মতো আমাদের ক্রয়কৃত জমির উপর নির্মিত বাড়িটিই ছিল একমাত্র সম্বল। ১৯৭৩ সালে ২৯৪ দাগের কেন্দুয়া মৌজায় ১৭ শতাংশ জমি স্থানীয় মৃত মুগো মন্ডলের ছেলে আলাউদ্দিনের কাছ থেকে ৩ জন শরিকে কেনে আমার স্বামী। এখানে আমাদের জমি ৬ শতাংশ।
২০০৬ সালে আমরা জানতে পারি যে, আমাদের জমিটি খাস খতিয়ানে রয়েছে। এটি জানার পর ভূমি অফিসে গিয়ে খোঁজ নিয়ে দেখি, কেন্দুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ  মাহবুবুর রহমানের ভাগ্নে মো. শাহীনের স্ত্রী খালেদা বেগমের নামে জমিটি লিজ দেয়া হয়েছে। পরবর্তিতে ওই জমিটি সংশোধনের জন্য ভূমি অফিসে আবেদন করি। এটা জানতে পেরে কেন্দুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ  মাহবুবুর রহমান ও কেন্দুয়া ভূমি অফিসের যোগসাজশে চেয়ারম্যানের ভাগ্নে শাহীনুর রহমান গংরা রাতের আঁধারে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাদের দখলীয় জমির দুই তৃতীয়াংশ জায়গা দখল করে নেয়।
এ নিয়ে প্রশাসনের রাজস্ব বিভাগের এডিসি ২০১১ সালে আমাদের সার্বিক দিক বিবেচনা করে ছয় শতাংশ জমি লিজ দেয়ার জন্য ডিসি ও ভূমি অফিসের কাছে একটি স্বাক্ষরিত কপিতে সুপারিশ করেন। কিন্তু পরবর্তীতে দখলবাজরা আমাদের বিরুদ্ধে উল্টো উচ্ছেদ মামলা করেন। চেয়ারম্যানের মদদে শাহীন গংরা আমাদের বাড়িটিকে চাপাতে চাপাতে  দুই থেকে আড়াই শতাংশের মতো করে ফেলেছে।
এছাড়া জামালপুর-সরিষাবাড়ী রাস্তা প্রশস্তকরণ প্রকল্পে আমাদের পুরো বাড়িটি বিলীন হয়ে যাবে। বর্তমানে বাড়ির যেটুকু জমি রয়েছে সেটুকুও নিজের বাড়ির জমি দাবি করে শাহীন গংরা রাস্তা প্রশস্তকরণের ক্ষতিপূরনের জন্য আবেদনও করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সদর আসনের সংসদ সদস্য, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে ভিক্ষুকের ওই জমিটুকু উদ্ধারের জন্য আবেদন জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার। 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।