দেওয়ানগঞ্জে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত

দেওয়ানগঞ্জে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত


ফরিদুল ইসলাম ফরিদ, দেওয়ানগঞ্জ প্রতিনিধি: সোমবার ৮মার্চ জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ডাংধরা ইউনিয়নের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ মমিনুল ইসলাম এর বিরুদ্ধে আনিত অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত করা হয় । 

গত ৩ মার্চ উপজেলার ডাংধরা ইউনিয়নের ভূমি সহকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ভূমিহীনদের ঘর বরাদ্দ বাবদ ৫ হাজার টাকা আদায় করেন এতে প্রায় ৩ শত জনের নিকট থেকে টাকা নেন বলে একই ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নাছিমা বেগম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। 

এছাড়াও ভূমির খাজনা, দাখিলা, নাম জারী বাবদ পরিমানের চেয়েও অনেকগুণ বেশী টাকা নেয় বলেও অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী জনতা। 

এর সুত্র ধরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশনায় ৮ মার্চ ডাংধরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে তদন্ত কর্মকর্তা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আফতাব উদ্দিন ও তার সফরসঙ্গী পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক কর্মকর্তা । 

ডাংধরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মোঃ মাসুদ এর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও ভুক্তভোগী জনসাধারণ। তদন্ত কর্মকর্তা গণ পর্যায়ক্রমে ভুক্তভোগীদের সাক্ষাৎকার গ্রহন করেন ও প্রমাণাদী সংগ্রহ করেন। 

সেখানে উপস্থিত জনতার মধ্য হতে অলিখিত মৌখিক অগণিত দুর্নীতির অভিযোগ মেলে এই ভূমি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। ডাংধরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মোঃ মাসুদ বলেন- প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘর বাবদ টাকা নিয়েছে কিনা আমি জানিনা, তবে ভূমি সংক্রান্ত কাজে নানা অনিয়মের অভিযোগ  শুনেছি ইতিপুর্বে।

এবিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আফতাব উদ্দিন এর নিকট জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকের ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আব্দুল্লাহ বিন রশিদ মুঠোফোনে বলেন- তদন্ত কমিটির তদন্ত চলমান রয়েছে, তদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  



শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।