সাদুল্লাপুরে ইউপি সদস্যের হামলায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি শ্রমিকনেতা আহত

সাদুল্লাপুরে ইউপি সদস্যের হামলায় দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি শ্রমিকনেতা আহত


আশরাফুল ইসলাম গাইবান্ধা: গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাট ইউনিয়নের ৫,৬ ৭ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য লাইলী বেগম ও তার লোকজনের হামলায় গাইবান্ধা জেলা মটরশ্রমিক ইউনিয়ন  রেজিঃ নং - ১০৭ এর সদস্য ও  ধাপেরহাট বন্দর শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি আব্দুল জলিল কে হামলা করে আহত করার অভিযোগ উঠেছে ।

এ ঘটনায় ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে আহত আব্দুল জলিল। সে উক্ত ইউনিয়নের ছাইগাড়ী গ্রামের রইচ উদ্দিনের ছেলে। সে বর্তমানে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,সম্প্রতি করোনা কালিন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার সামগ্রী (৪৫০ টাকা) প্রদানের ঘোষণা দিলে অত্র এলাকার গরীব ও অসহায় রোকজনের ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি অভিযুক্ত লাইলী বেগম কে প্রদান করে। এরপর এলাকার লোকজন উক্ত উপহার সামগ্রীর ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক প্রদত্ত টোকেন না পাওয়ায় ভুক্তভোগীগণ ইউপি সদস্য লাইলী বেগমের সহিত ঝগড়া ঝাটি করতে থাকে। 

এসময় উক্ত বিষয়ে ইউপি সদস্য লাইলী বেগমের নিকট জানতে চাওয়ায় তিনি আব্দুল জলিলের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে গালিগালাজ করে ও প্রান নাশের হুমকি ধামকি প্রদান করেন। এরপর ৭ মে শুক্রবার সকাল ১১ ঘটিকার সময় সাদুল্লাপুর হতে টাকা নিয়ে ধাপেরহাট বন্দরের রড, সিমেন্ট ক্রয়ের জন্য আসার পথে গোবিন্দপুর মাদ্রাসার সন্নিকটে ধাপেরহাট - সাদুল্লাপুর সড়কের উপরে আব্দুল জলিল কে একা পেয়ে ইউপি সদস্য লাইলী বেগম, তাহার কন্যা নুরী বেগম,আব্দুল মজিদ নামে এক ব্যক্তিসহ কয়েকজন অজ্ঞাত লোকজন পথরোধ করে চোখে মুখে বালু,ইটপাটকেল ছুড়ে মারে এরপর রাস্তায় পরে গেলে অভিযুক্তরা আব্দুল জলিল কে কিল ঘুষি,লাত্থি মেরে মারধর করে আহত করে। এবং তাহার কাছে পকেটে থাকা ৬০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। 

পরে স্থানীয় সাক্ষীদের সহযোগীতায় প্রথমে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহন শেষে পরিবার ও স্বজন ও প্রতিবেশীদের পরামর্শে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনে আব্দুল জলিল বাদী হয়ে অভিযুক্ত ইউপি সদস্যসহ ৩ জন ব্যক্তির নামে অভিযোগ দায়ের করে।

আহত শ্রমিকনেতা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি আব্দুল জলিল বলেন, অত্র এলাকার সাধারণ মানুষ তাদের নানা অনিয়মের স্বীকার হয়ে আমার নিকট আসে আমি এসব বিষয়ে তাদের নিকট জানতে চাইলে বা তাদের অন্যায় আচারণের প্রতিবাদ করলে তারা আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়। বিভিন্ন সময় তারা আমাকে নানা ভাবে হুমকি ধামকি দিতো। আজ ইউপি সদস্য লাইলী বেগমসহ হামলাকারীরা আমার প্রাননাশের চেষ্টা চালায় সাক্ষী ও স্থানীয় লোকজনের সহযোগীতায় প্রানে রক্ষা পেয়েছি।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য লাইলী বেগম জানান, উক্ত ব্যক্তি নিজের অপরাধ ঢাকতে নানা মিথ্যা অভিযোগ করছেন আব্দুল জলিল। তিনি আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছেন মোবাইলে রের্কড রয়েছে। আমার গায়ে হাত দিয়েছেন আমাকে লাঞ্চিত করেছেন আমার মাথায় লাঠি দিয়ে বারি দিয়েছে আব্দুল জলিল ঘটনাস্থলের উপস্থিত মানুষজন তার সাক্ষি দিবে। বরং আমার গায়ে হাত দেওয়া স্থানীয় উত্তেজিত জনতা হাত হতে রক্ষা করেছি। সরেজমিনে আসেন তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন আগামী কাল আমিও এ ঘটনায় সাদুল্লাপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করবো।

এদিকে এবিষয়ে ধাপেরহাট ইউপি চেয়ারম্যান (ভ্রারপ্রাপ্ত) আব্দুল্লাহ জানান, মারামারির বিষয়টি আমার জানা নেই । তবে উক্ত শ্রমিক নেতা আব্দুল জলিল বিভিন্ন সময়ে পরিষদের বিরুদ্ধে মনগড়া অভিযোগ বিভিন্ন স্থানে করে পরিষদের সম্মানহানির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমি উক্ত ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসাবে রয়েছি বর্তমান সময়ে পরিষদে কোন প্রকার অনিয়ম করা হবে না কাউকে করতেও দিবো না। পরিষদ সঠিক নিয়মে তার নিজেস্ব কাজ কর্ম চালিয়ে যাবে। এতে কেউ অতিরিক্ত সুবিধা চাইলে সেটা দেওয়া সম্ভব নয় সরকারি সুবিধা তালিকাভুক্ত সঠিক ব্যক্তির হাতে দেওয়া হবে কোন অনিয়ম হবে না। তবে শ্রমিকনেতা আব্দুল জলিলের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জ্ঞাপন করে তিনি হামলার ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে হামলার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার দাবী জানান।
 
আহত শ্রমিক নেতা আব্দুল জলিলের উপর হামলার ঘটনায় ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ বলেন, কিছুক্ষণ আগে রাতেই অভিযোগ পেয়েছি। পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এস আই শহিদুল ইসলাম কে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  



শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।