দুই কিশোরীকে পাচার হওয়া থেকে বাঁচালো লকডাউন, গ্রেফতার ১

দুই কিশোরীকে পাচার হওয়া থেকে বাঁচালো লকডাউন, গ্রেফতার ১
বগুড়ার নন্দীগ্রামের অপহরণকারী মারুফ হাসান। ছবি: নজরুল ইসলাম দয়া


স্টাফ রিপোর্টার : বগুড়ার নন্দীগ্রামে নিখোঁজের ৫ দিন পর জানা গেল দুই কিশোরীকে অপহরণ করে চট্রগ্রামে নিয়ে বিক্রি করে দেয়ার পরিকল্পনা করে অপহরণকারী চক্র। 

কিন্তু লকডাউনের জন্য কোনো সুবিধাজনক গাড়ি না পাওয়ায় বগুড়া শহরের একটি বাসায় আটকে রাখে এবং ধারালো অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। 

নিখোঁজ দুই কিশোরীকে উদ্ধারসহ অপহরণ চক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে অপহরণ চক্রের অন্য সদস্যরা পালিয়ে যায়। 

মঙ্গলবার বিকেলে র‌্যাব-১২ বগুড়ার কোম্পানি কমান্ডার (লে. কমান্ডার) আব্দুল্লাহ আল মামুন এ তথ্য জানান। এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা রিয়াজ উদ্দিন মোল্লা বাদী হয়ে নন্দীগ্রাম থানায় মামলা দায়ের করেছেন। 

র‌্যাব জানিয়েছে, ঈদের পরের দিন উপজেলার কল্যাণনগর গ্রামের দুই বান্ধবী নিজ নিজ বাড়ি থেকে পাশের বাড়ি যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে নিখোঁজ হন। দুজনই মাদ্রাসা ছাত্রী। অনেক খোঁজাখুঁজির পর ওইদিনই দুই কিশোরী নিখোঁজের বিষয়টি নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ ও র‌্যাব ১২ বগুড়াকে জানায় তাদের পরিবার। 

নিখোঁজের ৫দিন পর গত সোমবার দিবাগত রাতে বগুড়া সদরের খান্দার এলাকা থেকে মারুফ হাসান (১৭) নামের একজনকে গ্রেফতারের পর দুই বান্ধবীকে উদ্ধার করে র‌্যাব। অপহরণ চক্রের সদস্য মারুফ হাসান কল্যাণনগর গ্রামের মাহফুজার রহমান মাফুর ছেলে। 

র‌্যাব-১২ কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় অপহরণকারী চক্র ওই দুই ছাত্রীকে ফুসলিয়ে নন্দীগ্রাম থেকে বগুড়া শহরে নিয়ে আসে। ভয় দেখিয়ে তাদেরকে চট্রগ্রামে নিয়ে বিক্রি করে দেয়ার পরিকল্পনা করে। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক বিকাশ চক্রবর্তী জানান, মামলায় তিনজন এজাহারনামীয় আসামী রয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। উদ্ধারকৃত দুই কিশোরীকে মেডিকেল চেকআপের পর বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 
  

শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।