'পুরুষ আইনের দাবিতে এবার আইনমন্ত্রীর বক্তব্য চায় তারা'

জাতীয় সংসদের সব সাংসদ নারীদের জন্য সবসময় কথা বলেন। পুরুষ নির্যাতন দমন আইনের বিষয়ে সংসদে কথা হয়না কেন



নূরুজ্জামান খান : জাতীয় সংসদের সব সাংসদ নারীদের জন্য সবসময় কথা বলেন। পুরুষ নির্যাতন দমন আইনের বিষয়ে সংসদে কথা হয়না কেন? 

হতাশা প্রকাশ করে পুরুষ অধিকারের মিডিয়া মুখপাত্র সাংবাদিক নজরুল ইসলাম দয়া বলেন, বগুড়া-৭ আসনের সাংসদ রেজাউল করিম বাবলু সাহেব পুরুষদের কথা ভেবে একটু আওয়াজ দিতেই তাকে নিয়ে অনেকে হাসাহাসি করেছেন। 

কিন্তু বাবলু সাহেবই একজন পুরুষ বান্ধব এমপি। পুরুষ নির্যাতন দমন আইনের বিষয়ে আমরা মাননীয় আইনমন্ত্রীর বক্তব্য চাই। পুরুষ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কবে হবে? একজন অভিনেত্রী মদসহ গ্রেফতার হয়েছিল, তার মুক্তির দাবিতে পুরুষরাই রাজপথে এসেছিল। আইনের পর আইন হচ্ছে।  পুরুষদের আইনের দাবি মহামান্য রাষ্ট্রপতির মুখে উঠলেও সংসদে কথা নেই।  

১৯ নভেম্বর আন্তর্জাতিক পুরুষ দিবসে র‍্যালি ও মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশন (বাফুঅফা)। 

শুক্রবার বেলা ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে র‍্যালি শেষে আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব ফররুখ শাহজাদ শুভ বলেন, পুরুষদের কোনো অভিভাবক নেই। সংসদে পুরুষদের পক্ষে কথা বলার কেউ নেই। পুরুষদের ঘুম ভেঙেছে, রাজপথে এসেছে। পুরুষ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জোর দাবি উঠেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের পুরুষদের দিকে একবার নজর দিন। পুরুষদের অধিকার নিয়ে আমরা কথা বলছি। নারী নির্যাতন দমন আইনের সংশোধন প্রয়োজন। এই আইনে পুরুষরা জিম্মি। 

সংগঠনের মিডিয়া মুখপাত্র সাংবাদিক নজরুল ইসলাম দয়া বলেন, সব আইন পাস হয়, পুরুষদের পক্ষে আইন হয়না। সংসদে পুরুষদের নিয়ে একটু কথা বলুন। আমরা পুরুষ বিষয়ক মন্ত্রণালয় চাই। নারী আইনে বন্দি আমরা। নারী আইনের অপব্যবহার হচ্ছে। আমরা পুরুষ নির্যাতন দমন আইন চাই। 

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মহামান্য রাষ্ট্রপতি বলেছিলেন বাংলাদেশে ঘরে ঘরে পুরুষ নির্যাতন হচ্ছে। পুরুষ বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রয়োজন। পুরুষ নির্যাতন দমন আইন প্রয়োজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও আমাদের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু আজও আমরা হতাশায়, রাজপথে আন্দোলন সক্রিয় থাকলেও পুরুষদের পক্ষে সংসদে কোনো কথা নেই। স্ত্রীকে আইনীভাবে ডিভোর্সের নোটিশ দিলেই পুরুষের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আইনে অহরহ মামলা হচ্ছে। প্রেম ঘটিত বিষয়ে আদালতে এভিডেভিড করে বিয়ের পর ধর্ষণ এবং অপহরণ মামলা হচ্ছে পুরুষের বিরুদ্ধে। উভয় সম্মতিতে অনৈতিক ঘটনায় ভিকটিম যদি নারী হয়, তাহলে পুরুষও ভিকটিম। দুজনই অপরাধী। কিন্তু আইন শুধু নারীদের জন্য। এখানে নারী আইনের অপব্যবহার হচ্ছে। 

পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশন ঢাকা মহানগর কমিটির যুগ্ম আহবায়ক লেহাজ উদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, পুরুষ অধিকার নেতা মাহফুজার রহমান বিটুল, মিউজিশিয়ান সুমন চৌধুরী রানা, অভিনেতা আকাশ নিবির, আমির হোসেন ভুঞা, সুজন ওসমান, আরমান হোসেন, লুৎফর রহমান, শাহেদুল ইসলাম প্রমুখ। 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।