রৌমারীতে ভবন ভাঙ্গতে গিয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু, আহত-২

রৌমারীতে ভবন ভাঙ্গতে গিয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু, আহত-২



শফিকুল ইসলাম: কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙ্গার কাজ করার সময় দেয়াল ধসে আবু হানিফ (৩৫) নামে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুইজন শ্রমিক।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮ টায় উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ঝগড়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। নিহত আবু হানিফ দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ঝগড়ারচর গ্রামের মৃত আজিবর রহমানের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানা যায়, ঝগড়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবস্থিত দীর্ঘদিনের পুরানো একটি টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙ্গার কাজ করছিল কয়েকজন শ্রমিক। সকালে কাজ করার সময় হঠাৎ দেয়ালের একটি অংশ ধসে পড়ে। এতে দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান হানিফ। এ সময় স্কুল দপ্তরি জাহিদ হাসান ও ফজলুল নামের আরও দুই শ্রমিক গুরুতর আহত হন। আহত শ্রমিকদের রৌমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সুরুজ্জামান বলেন, নিলাম কার্যক্রম ছাড়াই পরিত্যক্ত ভবনটি ভাঙ্গার সময় দেয়াল চাপায় আবু হানিফ নামের একজন শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

ঝগড়াচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শামছুল আলম বলেন, পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙ্গার সময় দেয়াল চাপায় এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। এতে আরও দুজন আহত হয়েছে। 

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ম্যানেজিং কমিটির রেজুলেশন অনুযায়ী পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙ্গার কাজ শুরু করা হয়। ওই শ্রমিকের অসাবধানতার কারনে কাজ করার সময় দেয়ালের একটি অংশ তার ওপর ধসে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি জানতে চাইলে রৌমারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার (টিও) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, স্কুলের পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনের দেয়াল ভাঙ্গার কাজ করতে গিয়ে দেয়াল ধসে পড়লে একজন শ্রমিক মারা যায়। তবে দেয়ালটি অনেক দিনের পুরানো ও খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। তিনি আরও বলেন, ওই বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ভবন ভাঙ্গার কোন অনুমতি দেওয়া হয়নি। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল ইমরান জানান, ওই বিদ্যালয়ের টিনশেড ভবনটি ভাঙ্গার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তবে শুনেছি ভবনটির দেয়াল ভাঙ্গার কাজ করতে গিয়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

রৌমারী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আনছার আলী বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরুতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়। পরে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।  

রৌমারী থানার ওসি মোন্তাছের বিল্লাহ্ বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।