‘জয়’ ডেকে খালেদা-তারেক হিন্দু হয়না, জয় বাংলা বললে আমরা হিন্দু হই

‘জয়’ ডেকে খালেদা-তারেক হিন্দু হয়না, জয় বাংলা বললে আমরা হিন্দু হই



নন্দীগ্রাম প্রতিনিধি: বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু বলেছেন, জয় বাংলা এখন জাতীয় শ্লোগান। এখন থেকে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারি, ডিসি, এসপি, দারোগা, ইউএনও, প্রশাসন থেকে শুরু করে সবাইকে জয় বাংলা বলতে হবে। 

বিএনপির বড় এক নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ জয় বাংলা শ্লোগান দেয়, এরা সব হিন্দু হয়ে গেছে। এ ‘জয়’ কি বিএনপি বলে না? তারা বলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ধানের শীষ মার্কায় ভোট দিয়ে জয়-যুক্ত করুন। ওই জয়ের মালার জন্যে বিএনপি-তারেক হিন্দু হয়না। রাগেবুল আহসান রিপু আরো বলেন, বিএনপির বড় নেতা লালু এমপির বাসায় তারেক জিয়া থাকতো। লালু এমপির বড় ছেলের নাম বিজয়, ছোট ছেলের নাম জয়। সকালে খালেদা জিয়া ঘুম থেকে উঠে ডাকে বাবা জয়, সোনা জয়, মনা জয়। ওই ‘জয়’ বলার জন্যে খালেদা হিন্দু হয়না, লালু এমপি-তারেক জিয়া হিন্দু হয়না? আওয়ামী লীগ জয় বাংলা শ্লোগান দিলে হিন্দু হয়। জয় বাংলা জাতীয় শ্লোগান, বাঙালি জাতির শ্লোগান। এই জয় বাংলা শ্লোগান দিয়েই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাড়ে ৭ কোটি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। এই জয় বাংলা বুকে নিয়েই মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছেন।  

বৃহস্পতিবার বিকেলে নন্দীগ্রাম উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। উপজেলা সদরে পৌর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় চত্বরে উপজেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক এনামুল হকের সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বগুড়া জেলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. আব্দুস ছালাম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা, সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুদ্দিন শেখ হেলাল। বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুকুল হোসেন মুকুল, জেলা শ্রমিক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আলতাফ হোসেন, সংগঠনের নির্বাচন প্রস্তুত কমিটির যুগ্ম আহবায়ক তোজাম্মেল হোসেন, শেরপুর উপজেলা শাখার আহবায়ক কামাল শেখ, শাজাহানপুর উপজেলার সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান টুকু, নন্দীগ্রাম পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তার হোসেন বকুল, সাধারণ সম্পাদক শাহেরুল ইসলাম প্রমুখ। দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিলর ও উপস্থিত নেতাকর্মীদের সর্বসম্মতিক্রমে এনামুল হককে সভাপতি, আরাফাত রহমান রাজকে সাধারণ সম্পাদক, ফজলুর রহমানকে যুগ্ম সম্পাদক ও মুক্তার হোসেনকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে নন্দীগ্রাম উপজেলা শ্রমিকলীগের নতুন কমিটি এবং পৌর কমিটিতে আকরাম হোসেনকে সভাপতি ও সোহানুর রহমান সোহানকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন সংগঠনের জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুস ছালাম। 

 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।