সরিষাবাড়ীতে জন্মের ৭ মাস পর দেখা মিললো শিশুর গালে নৌকার প্রতীক

সরিষাবাড়ীতে জন্মের ৭ মাস পর দেখা মিললো শিশুর গালে নৌকার প্রতীক
পরিচিত হলো নৌকা কন্যা সাওদা নামে



 : মুখমণ্ডল বা শরীরের যেকোনো স্থানে জন্মদাগ থাকতে পারে। তবে এবার জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে জন্মের সাতমাস পর প্রকাশ হয়েছে শিশুর গালে নৌকা প্রতিকের জন্মগত চিহ্ন। শিশুটি সরিষাবাড়ী উপজেলার আরামনগর গ্রামের আরিফুল হক এর মেয়ে। 

জানা যায়, সরিষাবাড়ী উপজেলার আরামনগর গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে আরিফুল হকের সাথে ধনবাড়ী উপজেলার ছাত্তারকান্দি এলাকার হারুন অর রশিদের মেয়ে হাসি আক্তারের সাথে ১০ বছর পুর্বে বিবাহ হয়। বিবাহের পর তাদের ঘরে ২ টি পুত্র সন্তান জন্ম হয়। বড় ছেলে বন্ধন আরামনগর কামিল মাদরাসার ৪র্থ শ্রেনীতে ও ছোট ছেলে লাবীব চাইল্ড মমস স্কুলের প্রথম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত রয়েছে।  ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর সরকার পাশা ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্টে জন্মগ্রহণ করেন শিশু কন্যা। শিশু কন্যার জন্মের পর শিশুটির গালের ডান পার্শে হালকা নৌকা প্রতিকের চিহ্ন নিয়ে জন্ম হওয়ার বিষয়টি শিশুটির পিতা আরিফুল হক বিএনপি সমর্থিত বলে গোপন রাখেন তাদের পরিবার। আরিফুল হক আরামনগর বাজার এলাকার বন্ধন কোয়ালিটি আইসক্রীমের সত্ত্বাধিকারী।  কিন্তু এখন বাচ্চাটির গালের ডানপাশে নৌকা প্রতিকের চিহ্ন  ভেসে উঠেছে সেটা এখন আর তারা গোপন রাখতে পারছেন না। এলাকায় বিভিন্ন জনে নাম রেখেছে নৌকা কন্যা সাওদা। তার বাড়ীতে বিভিন্ন মানুষ শিশুটিকে দেখতে যান ও শিশুটির খোজ খবর নিচ্ছেন। ২ আগস্ট সরিষাবাড়ী পৌর ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর সাংবাদিক মাসুদুর রহমানকে বিষয়টি জানালে সংবাদ প্রকাশের জন্য তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তথ্য নিতে গেলে আরিফুল হক শিশুটিকে নিয়ে আসেন। 

এ বিষয়ে শিশুটির পিতা আরিফুল হক বলেন, কিছুদিন যাবত আমি ফলো করলাম গালে নৌকা প্রতিকের প্রতিচ্ছবিটি বুঝা যাচ্ছে। এটা গোপন রাখা যাচ্ছে না। বাচ্চাটিকে যেই কোলে নেয় সেই অবাক হচ্ছে। এভাবে এক কান দুকান হয়ে সবাই জেনে গেছে ও প্রচার হয়ে গেছে এবং বিভিন্ন মানুষ দেখতে আসে। আল্লাহর প্রদত্ত দাগ এটা কারোর কিছুই করার নেই। মেয়েটির নাম আমরা সাওদা রেখেছি।  কিন্তু যারা দেখতে আসে তারা রাখে নৌকা কন্যা সাওদা। অনেকেই নৌকা কন্যা সাওদা নামেই ডাকে। আর এটা যদি প্রকৃতপক্ষেই নৌকার চিহ্ন হয় তাহলে নৌকার মালিকের দৃষ্টিতে আসুক সেটাই আমি চাই।   আমার মেয়ের জন্য সবাই দোয়া করবেন। 

কথা হলে ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর জানান, বাচ্চাটির বাবা আরিফুল হক আমার ঘনিষ্ট বন্ধু। আমি তার বাড়ীতে গিয়ে দেখি বাচ্চাটি শুয়ে আছে এবং দেখতে পাই তার গালে নৌকার প্রতিকের প্রতিচ্ছবি। বিষয়টি দেখেই আমি সাংবাদিকদের সাথে আলোচনা করি।এই বাচ্চাটি আওয়ামীলীগের প্রতিক স্বরুপ যেটা আল্লাহ তাআলা দিয়েছেন, এটা বাংলাদেশের ইতিহাসে এটিই প্রথম আমার মনে হয়। আর এর দারায় বুঝায় জনগনের কাছে নৌকা ছাড়া কোন গতি নেই। নৌকাকেই মনে থেকে লালন করতে হবে। তারই প্রতিচ্ছবি হিসেবে এই বাচ্চাটির গালে নৌকার চিহ্ন। এই বাচ্চাটির চিহ্ন আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনার ছায়া তলেই থাকুক এটাই আমার প্রত্যাশা। 


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।