জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পেল সরিষাবাড়ী’র আসাদুজ্জামান

: জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার মো. আসাদুজ্জামান পেশায় রাজমিস্ত্রি হলেও নিজের লেখাপড়া চালানোর পাশাপাশি ‘মিলন স্মৃতি পাঠাগার’ নামে ১৬টি গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেছেন পাঠাগার। স্বপ্ন রয়েছে সরিষাবাড়িতে একটি ‘লাইব্রেরি ভিলেজ’ গড়ে তোলার, যেখানে সব মানুষ এসে বিনামূল্যে যেন বই পড়তে পারেন। 

জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পেল সরিষাবাড়ী’র আসাদুজ্জামান
মিলন স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আসাদুজ্জামান বই নিয়ে রেল ষ্টেশনে



 তার এই স্বপ্নপূরণে বড় অগ্রগতি হয়েছে শনিবার। আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) ‘ইয়াং বাংলা’ ক্যাম্পেইন খুঁজে বের করেছে আসাদুজ্জামানকে। অসামান্য অবদানের জন্য তার হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ ।সাভারের শেখ হাসিনা যুব উন্নয়ন ইন্সটিটিউটে আজ প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা ও সিআরআইয়ের  চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ জয় আসাদুজ্জামানকে পুরস্কার তুলে দেন। পুরস্কার পাওয়ার পর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমি নিজে রাজমিস্ত্রীর কাজ করি। লেখাপড়ার ও পাঠাগারের খরচ চালাই। এ পর্যন্ত ১৬টি গ্রামে আমি পাঠাগার স্থাপন করেছি। ভবিষ্যতে একটি ‘লাইব্রেরি ভিলেজ’ স্থাপন করারও পরিকল্পনা রয়েছে যেখানে প্রত্যেক গ্রামের ছেলেমেয়েই বিনামূল্যে বই পড়তে পারে।’ 

আসাদুজ্জামান এই মিলন স্মৃতি পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি। যুব সমাজকে বই পড়ায় উৎসাহিত করার জন্য প্রতিষ্ঠিত সংগঠনটি জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলায় মোট ১৬টি পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করেছে। যার মধ্যে ১টি শিশু পাঠাগার, ৪টি রাস্তার পাশের পাঠাগার এবং ৩টি রেলস্টেশন পাঠাগার রয়েছে। 

আসাদুজ্জামানসহ এদিন ৬টি বিভাগে ১০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডে’ দেয়া হয়।


শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।