রৌমারীতে জমি নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

 : জমি সংক্রান্ত জের ধরে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় জমিটি কার দখলে রয়েছে এবিষয়ে জজ আদালত সরেজমিনে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নিদের্শ দিয়েছেন দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে। 

রৌমারীতে জমি নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ



 ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নে।


মামলা ও  স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চর বোয়ালমারী গ্রামের মৃত আলেক উদ্দিনের ছেলে আব্দুল মোতালেবগং একই ইউনিয়নের চেংটাপাড়া গ্রামের রহমত উল্লার কাছ থেকে ১৯৭৬ সালে ৪১১৬ দাগে ৫০ শতাংস জমি দলিল মুলে ক্রয় করেন এবং ৪৬ বছর থেকে তিনি ভোগদলল করে আসছেন। জমির পূর্ব মালিক রহমত উল্লাহ মারা যাওয়ার পর তারই ছেলে আবুল কাশেম ইতিমধ্যে ওই জমিতে হাল চাষ করতে বাধা দেন মোতালেবকে। জমিটি ভোগদখল করা অবস্থায় ১৯৯৩ সালে মোতালেব বাদী হয়ে কুড়িগ্রাম সহকারি জজ আদালতে একটি আপিল মামলা করেন মামলা  নং ১। এই মামলায় আদালত থেকে বাদী পক্ষে রায় দিলে এরই প্রেক্ষিতে সরেজমিনে তদন্ত করে গত ১৮ মে ২২ সালে অনলাইনে নাম খারিজের আবেদনের জন্য নির্দেশ দেন উপজেলা সহকারি ভূমি কর্মকর্তা। গত ২ মাস আগে মোতালেব জমিতে হালচাষ করে আমন ধানের চারা রোপন করেন। কয়েক দিন পর বিবাদী আবুল কাশেমগং অন্যান্য অংশিদারসহ জোরপূর্বক অবৈধপন্থায় রাতের আধারে রোপনকৃত ধানের চারা জমি থেকে তোলে ফেলে এবং ওই সময়ে মাসকলাই ছিটায়। কয়েকদিন পর ক্রয়কৃত জমির মালিক মোতালেব ওই জমিতেই তিনি মাসকলাই ছিটান। এ নিয়ে উভয়ের পক্ষে আদালতে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছেন। এনিয়ে দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ভূমি কর্মকর্তা শাহাদত হোসেন ঘটনাস্থল যান এবং তদন্ত করেন। বাদী মোতালেব জানান, জমিটি ক্রয় করে ৪৬ বছর থেকে আমরা ভোগদখল করে আসছি। বিবাদী পক্ষ আমাদের কাছে জমি বিক্রয় করে অস্বীকার করছেন।



শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।