আরও ৩টি উড়োজাহাজ যুক্ত হচ্ছে বিমান বন্দরে

আরও ৩টি উড়োজাহাজ যুক্ত হচ্ছে বিমান বন্দরে
ড্যাশ-৮ কিউ-৪০০


সেবা ডেস্ক: বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ ও আঞ্চলিক রুটে যাত্রী চাহিদা বাড়লেও রুটগুলোতে ফ্লাইট বৃদ্ধি করতে পারছে না রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। আর এ বাস্তবতায় অভ্যন্তরীণ ও আঞ্চলিক রুটে ফ্লাইট নির্বিঘ্ন করতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কানাডার উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোম্বার্ডিয়ারের কাছ থেকে তিনটি ড্যাশ-৮ কিউ-৪০০ উড়োজাহাজ ক্রয়ের চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। গত  বুধবার সচিবালয়ে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিতে বিমানের পক্ষে এমডি মোসাদ্দিক আহমেদ ও কানাডিয়ান কমার্শিয়াল করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কার্ল মারকোটি স্বাক্ষর করেন।

বাংলাদেশ ও কানাডা সরকারের মধ্যে জিটুজি ভিত্তিতে ক্রয় করা উড়োজাহাজ ৩টি ২০২০ সালের মার্চ, মে এবং জুন মাসে হস্তান্তর করা হবে। ২০১৬ সালের ১৫ নভেম্বর সরকারি ক্রয় কমিটিতে এ-সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অনুমোদিত হয়। দুই ইঞ্জিনবিশিষ্ট টার্বো প্রপ প্রতিটি উড়োজাহাজের দাম পড়বে ৩১ দশমিক ৩ মিলিয়ন ডলার। এজন্য ঋণসহায়তা দেবে কানাডা সরকারের প্রতিষ্ঠান ‘এপপোর্ট ডেভেলপমেন্ট কানাডা’ (ইডিসি)।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেন বিমান ও পর্যটন সচিব মহিবুল হক, বিমান বোর্ডের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) ইনামুল বারী, বোম্বার্ডিয়ার রিজিওনাল পরিচালক রোব বার্ডিস্কি প্রমুখ।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল বলেন, জাতীয় পতাকাবাহী বিমানকে ‘আকাশে শান্তির নীড়’ হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে। এ লক্ষ্যে বিমানের সেবার মানবৃদ্ধিসহ এর বহরে নতুন নতুন এয়ারক্রাফট সংযোজন করা হচ্ছে।




,