জামালপুরের রাজনীতিবিদ এমপি আবুল কালাম আজাদ

জামালপুরের রাজনীতিবিদ এমপি আবুল কালাম আজাদমালপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাতকালে

এস এম আশরাফুল আজম: পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ একজন জামালপুরের রাজনীতিবিদ এবং জামালপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য। তিনি ২০১৮ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। 

কর্মজীবন

আবুল কালাম আজাদ ১৯৬৩ সালে প্রথম তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তান ওয়াটার এন্ড পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট অথরিটিতে কর্মকর্তা হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৬৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান ওয়াপদা বিভক্ত হওয়ায় তিনি পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের অধীনে ন্যস্ত হন। তিনি এখান থেকে ১৯৭৫ সালে কলেরা রিসার্চ ল্যাবরেটরি ঢাকায় লিঁয়াজো প্রধান হিসেবে যোগদান করেন।

একই প্রতিষ্ঠানে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত পারসনাল ম্যানেজমেন্ট ব্রাঞ্চের প্রধান ও প্রশাসনিক উপ-প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে কলেরা রিসার্চ ল্যাবরেটরি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান/সংস্থা আই,সি,ডিডি,আর,বি(ICDDRB) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। তিনি সেখানে পারসনাল ম্যানেজমেন্টের প্রধান এবং জনসংযোগ ও তথ্য কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৯১ সালের ১২ জানুয়ারি আইসিডিডিআরবি থেকে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণ করেন।

তিনি ১৯৭০ সাল থেকে জাতীয় প্রেসক্লাব ঢাকার অ্যাসোসিয়েট সদস্য এবং ১৯৮০ সাল থেকে ঢাকা ক্লাব লিমিটেডের সদস্য। তিনি ১৯৮৪ও ৮৫ এবং ১৯৮৬ ও ৮৭ সালে বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি আইসিডিডিআরবি-এর স্টাফ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের প্রাক্তন সভাপতি, ওয়াটার এন্ড পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এবং আন্তর্জাতিক জনসংযোগ সমিতির ন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর ছিলেন।

রাজনৈতিক জীবন

আবুল কালাম আজাদ ১৯৫৪ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নকালে ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৯ ও ৬০ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগের হল শাখার সভাপতি ছিলেন। ডাকসুর নির্বাচনে ১৯৬১ ও ৬২ সালে সলিমুল্লাহ মুসলিম হল সংসদের প্রতিনিধি নির্বাচিত হন এবং ড্রামা ও এন্টারটেইনমেন্ট সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ঐ সময় হামিদূর রহমান শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ১৯৬২ সালে কারাবরণ করেন। তিনি ১৯৬৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

আবুল কালাম আজাদ ১৯৯১ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১৩৮-জামালপুর-১, দেওয়ানগঞ্জ - বকশীগঞ্জ নির্বাচনি এলাকা থেকে ৪ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রথমবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে তিনি তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান, সংসদীয় সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং সংসদীয় সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটির সদস্য ছিলেন। এছাড়াও জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০০৮ সালের ২৯ শে ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী নিযুক্ত হন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করে সংসদস সদস্য হওয়ার পর তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন।

আবুল কালাম আজাদ ১৯৮২ সালে মুম্বাই, ইন্ডিয়ায় ৯ম বিশ্ব জনসংযোগ কংগ্রেসে, ১৯৮৫ সালে আমস্টার্ডাম, নেদারল্যান্ডে ১০ম বিশ্ব জনসংযোগ কংগ্রেসে, ১৯৮৮ সালে অস্ট্রেলিয়ায় ১১তম বিশ্ব জনসংযোগ কংগ্রেসে যোগদান, ১৯৯৩ সালে নমপেন, কম্বডিয়াতে জাতীয় গণতান্ত্রিক ইন্সটিটিউট কর্তৃক পরিচালিত আন্তর্জাতিক সংসদীয় সেমিনারে, ১৯৯৬ সালে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এবং ইউএস কংগ্রেসের ভূমিকা পর্যবেক্ষণে ইউএস ইনফরমেশন এজেন্সির ইন্টারন্যাশনাল ভিজিটর প্রোগ্রামে সেদেশে বিভিন্ন স্টেটে পর্যবেক্ষক হিসেবে এবং ১৯৯৭ সালে সার্ক সম্মেলনে ভারতে পাবলিক একাউন্সের স্থায়ী কমিটির সভায় যোগদান করেন।

আবুল কালাম আজাদ ১৯৫৪ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সহিত জড়িত ছিলেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নকালে ছাত্র রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৫৯ ও ৬০ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগের হল শাখার সভাপতি ছিলেন। 

ডাকসুর নির্বাচনে ১৯৬১ ও ৬২ সালে সলিমুল্লাহ মুসলিম হল সংসদের প্রতিনিধি নির্বাচিত হন এবং ড্রামা ও এন্টারটেইনমেন্ট সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ঐ সময় হামিদূর রহমান শিক্ষা কমিশন রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলনে কারাবরণ করেন। তিনি ১৯৬৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

আবুল কালাম আজাদ ১৯৯১ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রথমবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পুনরায় ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে তিনি তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান, সংসদীয় সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং সংসদীয় সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটির সদস্য ছিলেন। এছাড়াও জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকারের দায়িত্ব পালন করেন। 

দেওয়ানগঞ্জ - বকশীগঞ্জ নির্বাচনি এলাকা থেকে ৪ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০৮ সালের ২৯ শে ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী নিযুক্ত হন। বর্তমানে(২০১৪ থেকে)তিনি পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন।

আবুল কালাম আজাদ যে হল কমিটির সভাপতি ছিলেন সেই কমীটির সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ছিলেন বর্তমান জাতীয় নেতাদের অন্যতম তোফায়েল আহামেদ।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন এবং কারাবরণ করেন।

স্বাধীনতা সংগ্রামের আন্দোলনের জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সাথে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে একসাথে জেল খাটেন।

১৫ ই আগষ্ট যখন জাতির জনক ও পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হয় সেদিন আবুল কালাম আজাদ ই একমাত্র ব্যাক্তি যিনি ৩২ নাম্বার বাড়িতে যান। তিনি দেখতে পান তখনো বঙ্গবন্ধুর বড় বোন আছিয়া গুলিবিদ্ধ অবস্থায় জীবিত আছেন। তখন কোনো গাড়ী না পেয়ে ভ্যানে করে ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে যান কিন্তু সেখানে ভর্তি না নেওয়ায় নিজ বাসায় এনে চিকিৎসা করান। এই খবর যখন তৎকালীন সেনাবাহিনী পায় তখন তার বাসায় আক্রমণ করে এবং আবুল কালাম আজাদ গুলিবিদ্ধ হন।

৭৫ এর হত্যাকান্ডের পর শেখ মনির সন্তানসহ শেখ সেলিমের পরিবারকে আবুল কালাম আজাদ নিজ বাসায় আশ্রয় দেন। এবারও আইন শৃঙ্খলা বাহিনী উঁনার বাসায় অভিযান চালায়। তখন বর্বর বাহিনীর তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে না পেরে আবুল কালাম আজাদের পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে "লিমা" কে তুলে নিয়ে যায়। আবুল কালাম আজাদ অনেক ধস্তাধস্তি করে মেয়েকে ছাড়িয়ে নেন। (সূত্র: শেখ পরশের 15 ই আগষ্টের অভিজ্ঞতা)

আবুল কালাম আজাদ সবচেয়ে সিনিয়র পার্লামেন্টেরিয়ান সদস্য (শুধু সাজেদা চৌধুরী কয়েকদিনের বড়)

আবুল কালাম আজাদের কাছে বঙ্গবন্ধুর পরিবার ঋনী (জননেত্রী শেখ হাসিনা)

সপ্তম শ্রেণী থেকে আবুল কালাম আজাদ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে একনিষ্ঠভাবে জড়িত। আজ ৮৩ বছর বয়সেও দেশের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশের সকল উন্নয়নে আবুল কালাম আজাদ অবদান রাখছেন কারণ দেশের যতো উন্নয়ন পরিকল্পনা করা হয় সেই পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির উঁনি সভাপতি।





-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

, ,

0 comments

Comments Please

আপনার মূল্যবান মতামতের জন্য সেবা হট নিউজ পরিবারের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

সেবা হট নিউজ : সত্য প্রকাশে আপোষহীন