বকশীগঞ্জে বাল্য বিবাহের তিন মাস পর বর ও কনের বাবাকে অর্থদন্ড

বকশীগঞ্জে বাল্য বিবাহের তিন মাস পর বর ও কনের বাবাকে অর্থদন্ড


শাহজাহান পারভেজ শাহীন, বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি: জামালপুরের বকশীগঞ্জে বাল্য বিবাহ দেওয়ায় মেয়ের বাবা ও ছেলের বাবাকে অর্থদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শনিবার বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভ্রাম্যমাণ আদালতে উক্ত দন্ডাদেশ প্রদান করেন। 

জানা গেছে, বকশীগঞ্জ উপজেলার বাট্টাজোড় ইউনিয়নের পলাশতলা গ্রামের আকরাম আলীর ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়–য়া স্কুল ছাত্রীর (১২) সঙ্গে শ্রীবরদী উপজেলার বনপাড়া গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে রুকন মিয়ার তিন মাস আগে বিবাহ সম্পন্ন করা হয়। 

বিয়ের তারা ঘর সংসার করে আসছিলেন। কিন্তু বিষয়টি জানাজানি হলে শনিবার সকালে মেয়ের বাবা আকরাম আলীর বাড়িতে হানা দেয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুন মুন জাহান লিজা। 

সেখানে বেড়াতে আসা ছেলের বাবাকেও পাওয়া যায়। পরে মেয়ের বাবা আকরাম আলী ও ছেলের বাবা বাবুল মিয়াকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে হাজির করা হয়। বিকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বাল্যবিবাহ সম্পন্ন করার দায়ে মেয়ের বাবাকে নগদ ৫ হাজার টাকা ও ছেলের বাবাকে নগদ ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়।

পরে মেয়ের বাবা তার মেয়ের বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত ছেলের বাড়িতে পাঠাবেন না মর্মে ইউএনও’র কাছে অঙ্গীকার করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মুন মুন জাহান লিহা জানান, বাল্যবিবাহ নিয়ে কোন অভিযোগ থাকলে বিয়ের দুই বছর পর্যন্ত আদালত ইচ্ছা করলে ব্যবস্থা নিতে পারে। 

এই রায়ের মাধ্যমে বাল্য বিবাহ বিষয়ে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চাই। যেহেতু ময়মনসিংহ বিভাগকে বাল্যবিবাহ মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। 
সে লক্ষ্যে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। 

তাই তিনি বাল্যবিবাহ রোধে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন ।


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

1 comments

বিবাহকে সহজ করুন, ধর্ষণ প্রতিরোধ করুন।

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।

Dara Computer Laptops