লকডাউনে সিনেমা হলে উদ্দাম যৌনতা, ক্যামেরাবন্দি যুগলের কাণ্ড

লকডাউনে সিনেমা হলে উদ্দাম যৌনতা, ক্যামেরাবন্দি যুগলের কাণ্ড
সেবা ডেস্ক: লকডাউনের কারনে বন্ধ সিনেমা হলে ঢুকে, পপকর্ন খেয়ে যৌনতায় মজল প্রেমিক যুগল। সিনেমার চিত্রনাট্যকেও হার মানিয়েছে এই ঘটনা। 

যে ঘটনা ক্যামেরাবন্দি হয়ে ছড়িয়ে পড়ার পর রীতিমতো অবাক নেটিজেনরা।

করোনার জেরে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে (Saint Petersburg) নতুন করে লকডাউন ঘোষিত হয়েছে। জরুরি কোনও কাজ না থাকলে নাগরিকদের বাড়িতেই থাকতে বলা হয়েছে। 

আর প্রশাসনের নিয়ম ভেঙেই আজব কাণ্ড ঘটাল রাশিয়ান (Russia) যুগল। ঘটনা গত ১৮ মার্চের। সাউথ পোল শপিং সেন্টারের কিনোগার্ড সিনেমার দরজা ভেঙে চুপিসারে ঢুকে পড়ে তারা। 

তারপর হলের বাইরের কাউন্টার থেকে তুলে নেয় দুটি বড় মাপের পপকর্নের বাকেট আর ড্রিঙ্কস। এবার চারদিক দেখে নিয়ে ধীরে ধীরে প্রবেশ করে স্ক্রিনিং রুমের দিকে। 

গোটা ঘটনা ধরা পড়ে সেখানকার সিসিটিভিতে।
ভিডিওটি নিচে দেওয়া হলো:


স্ক্রিনিং রুমে ঢুকে কী করল তারা? না, বন্ধ হলে ছবি দেখার লোভে প্রেমিক যুগল যায়নি। বরং ফাঁকা জায়গা পেয়ে যৌনতায় লিপ্ত হয় তারা। সেই রুমে যে সিসিটিভি ছিল, সেখানে তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের দৃশ্য ধরা পড়ে। নিরাপত্তারক্ষীর চোখ এড়িয়েই গোটা ঘটনাটি ঘটায় তারা। 

কিন্তু এমন কাণ্ডে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে সিনেমা হলটির নিরাপত্তা নিয়ে। যে কেউ এভাবে ঢুকে যা ইচ্ছা করতে পারেন বলে চিন্তা প্রকাশ করেছেন অনেকেই। 

যদিও প্রেক্ষাগৃহের মুখপাত্র জানান, সব পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেই হল থেকে বেরিয়ে ছিল ওই যুগল। তাই খুশি হয়ে তাদের বিনামূল্যে টিকিটও দিতে চেয়েছে কর্তৃপক্ষ।

হল কর্তৃপক্ষ বিষয়টিকে হালকাভাবে নেওয়ায় অবশ্য অনেকেই সমালোচনা করেছেন। লকডাউনের মধ্যে এমন কাণ্ডের জন্য অজ্ঞাতপরিচয় ওই প্রেমিক-প্রেমিকার শাস্তিও দাবি করেছেন অনেকে। সম্প্রতি ব্রিটেনে লকডাউনের নিয়ম ভেঙে রাস্তার ধারে গাড়ির মধ্যে সঙ্গমের অভিযোগে এক যুগলকে প্রায় ৪০ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছিল। কিন্তু এক্ষেত্রে হল কর্তৃপক্ষ কিংবা পুলিশ কোনও পদক্ষেপ না করায় নিন্দার ঝড় উঠেছে সেন্ট পিটার্সবার্গে।   



শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।