মরণফাঁদে বাঁশখালীর ছনুয়া-পুঁইছড়ি সংযোগ বেইলি সেতু

মরণফাঁদে বাঁশখালীর ছনুয়া-পুঁইছড়ি সংযোগ বেইলি সেতু



শিব্বির আহমদ রানা, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম): চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার উপকূলীয় এলাকা ছনুয়া-পুঁইছড়ি ইউনিয়নের লোকজনদের যাতায়তের অন্যতম মাধ্যম সংযোগ বেইলি সেতুর পাটাতন মরিচা ধরে খসে পড়ায় একেবারে চলাচল অনুপযোহী হয়ে পড়ে। 

বাঁশখালী উপজেলার ছনুয়া ইউনিয়নসহ অন্যান্য এলাকার লোকজনদের সাথে কুতুবদিয়ার লোকজনদের চলাচলের বিকল্প মাধ্যম এ বেইলী সেতু। 

দীর্ঘ ৪ বছর সময়কাল ধরে অচলাবস্থায় পড়ে থাকা ঝুঁকিপূর্ণ এ বেইলি সেতু দিতে বাধ্য হয়ে সাধারণ লোকজন হাঁটা চলাফেরা করছে। 

এসময়ে মানুষের প্রয়োজনে জরুরী কাজে ব্যবহৃত যানবাহন চলাচলও বন্ধ হয়ে যায়। প্রতিদিন এই বেইলি সেতু দিয়ে চলাচল করে রাজখালী বি ইউ আই ফাজিল মাদরাসা, রাজাখালী ফৈজুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়, ছনুয়া কাদেরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, রাজাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাজাখালী আরবশাহ্ বাজার, ছনুয়া মনুমিয়াজী বাজার সহ এলাকার বিভিন্ন নুরানি মাদরাসার শিক্ষার্থীরা। 

ঝুঁকিপূর্ণ এ সেতু দিয়ে চলাচলরত যাত্রীরা প্রতিনিয়ত কোন না কোন দূর্ঘটনার কবলে পড়ছে। 

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ ৪ বছর ধরে অকেজো হয়ে পড়ে থাকা সেতুর মেরামতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এমনকি উপজেলা প্রশাসনও এগিয়ে আসেনি। 

জনগুরুত্বপূর্ণ এ সেতু দিয়ে প্রতিদিন অন্তত ৩-৪ হাজার লোকজন চলাচল করে। 

এ পর্যন্ত সেতুটি পারাপার হতে গিয়ে পাটাতনে পা আটকে পঙ্গুত্ববরণ করেছে শিশু-কিশোর, বৃদ্ধ ও স্কুলশিক্ষার্থীসহ অনেকেই। 

এলাকার সচেতন মহল স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে বারবার ধর্ণা দিলেও কোন প্রতিকার পাননি বলে জানান তারা।

স্থানীয় মুহাম্মদ হোসাইন বলেন, 'জনগুরুত্বপূর্ণ বেইলি সেতুর ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার কারণে উপজেলার প্রধান সড়কের সাথে আমাদের এ উপকূলীয় অঞ্চলের লোকজনের যাতায়ত ব্যাহত হচ্ছে। 

বিশেষ করে শিশু, গর্ভবতী মহিলা রোগী, বৃদ্ধাদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। সভ্যতার চরম উৎকর্ষতায় এ ধরণের অনুন্নত অবকাঠামো মেনে নেওয়ার মতো নয়। 

সারাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের জোয়ার বয়ে গেলেও বাঁশখালী উপজেলার ছনুয়া উপকূলীয় এলাকার লোকজনদের ভাগ্য পরিবর্তন হয়নি। 

স্বাভাবিকভাবে লোকজন ও যানচলাচলেরর উপযোগী করার জন্য বেইলি সেতুটি দ্রুত মেরামতে কতৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

উল্লেখ্য, আরবশাহ্ বাজার থেকে ১হাজার মিটার উত্তরে অবস্থিত পুঁইছড়ি-ছনুয়া স্টিলের বেইলি সেতুটি বিগত ২০০৬ সালে তৎকালীন বিএনপি সরকারের আমলে নির্মাণ করা হয়। 

লবণ বোঝাই ট্রলি চলাচলের কারণে সেতুরর পাটাতন নষ্ট হয়ে যায়। পরে ২০১৭ সালে বাঁশখালী উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ জহিরুল ইসলাম সেতুটি সংস্কার করেন। 

কয়েক বছর যেতে না যেতেই লবণাক্ততার কারণে মরীচিকা ধরে যায় পাটাতনে। এই সেতু দিয়ে যাতায়াত করেন ছনুয়া ও পুঁইছড়ি ইউনিয়নের অর্ধলক্ষ মানুষ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাঁশখালী উপজেলা প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম ভুঁইয়া বলেন, 'সেতুর বিষয়ে আমরা অবগত হয়েছি। ঢাকা থেকে একটা টিম  ভিজিটে আসার কথা। 

এ সেতু মেরামতের জন্য উপজেলা থেকে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ লক্ষ টাকার প্রাক্কলন প্রস্তুত করে পাঠিয়েছি। 

এলজিইডির টিম পরিদর্শনে আসবে। উনারা পরিদর্শনের পর অনুমোদন দিয়ে দেবেন। আশা করছি শিগ্রই সেতু মেরামত করা সম্ভব হবে। 

ছবি: বাঁশখালী উপজেলার ছনুয়া-পুঁইছড়ি সংযোগ বেইলি সেতুর বেহাল অবস্থা। 



শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।