দশম শ্রেণির ছাত্র আবদুল্লাহ এর প্রতিমাসে আয় ৩০ হাজার টাকা

দশম শ্রেণির ছাত্র আবদুল্লাহ এর প্রতিমাসে আয় ৩০ হাজার টাকা



সেবা ডেস্ক: ন’রসিংদী সদ’র উপজেলা’র বী’রপু’র এলাকা’র মকবুল হোসেনে’র ছেলে দশম শ্রেণি’র ছাত্র মো. আবদুল্লাহ মাত্র ১০ হাজা’র টাকা পুঁজিতে বাড়ি’র ছাদে মাশরুম চাষ শুরু করেন। 

ছয় মাস যেতে না যেতেই প্রতিমাসে আয় ক’রছেন ৩০ হাজা’র টাকা। বর্তমানে তা’র বিনিয়োগ দুই লাখ টাকা। 

আবদুল্লাহ ন’রসিংদী আইডিয়াল স্কুলে’র দশম শ্রেণি’র ছাত্র। তা’র মাশরুম বাগানে’র নাম ফিউচা’র মাশরুম সেন্টা’র।

জানা যায়, চলতি বছরে’র এপ্রিল মাসে স্কুল বন্ধ থাকা’র সময় বাসায় বেকা’র বসে না থেকে নতুন কিছু শেখা’র এবং নতুন কিছু করা’র প্রত্যয়ে আবদুল্লাহ অনলাইনে মাশরুম সম্পর্কে ঘাঁটাঘাঁটি করে। একপর্যায়ে সাভা’র মাশরুম উন্নয়ন ইসস্টিটিউট থেকে ছয় হাজা’র টাকা’র বিনিময়ে একটি অনলাইন কোর্স করে। সেখান থেকে প্রাথমিক ধা’রণা নিয়ে জুন মাসে’র দিকে মাত্র ১০ হাজা’র টাকা পুঁজি নিয়ে বাড়ি’র ছাদে মাশরুম চাষ শুরু করে। প্রথমে কোনো ‘রকমে পুঁজি উঠলেও গত দুই মাস ধরে গড়ে ৩০ হাজা’র টাকা আয় হচ্ছে তা’র।

তিন তলা বাড়ি’র ছাদে’র এক পাশে টিনে’র শেড। শেডে’র নিচে পাটে’র ‘রশি’র শিকা। শিকায় ঝুলছে মাশরুমে’র বীজপত্র। খড় দিয়ে বিশেষ পদ্ধতিতে বানানো এই বীজপত্রে’র চা’রপাশ দিয়ে ‘রয়েছে ছোট বড় মাশরুম।

আবদুল্লাহ বলেন, বাবা’র কাছ থেকে মাত্র ১০ হাজা’র টাকা নিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম। গত ছয় মাস কাজ করেছি। তিন মাস লাগে একটা বীজপত্র বা মাইসিলিয়াম শেষ হতে। প্রতিটি মাইসিলিয়াম থেকে দেড় কেজি মাশরুম আসে। প্রতি কেজি মাশরুম বিক্রি হয় ২৫০ টাকায়। এখন আমা’র পুঁজি আছে দুই লাখ টাকা। প্রতি মাসে ৫০ হাজা’র টাকা’র বেশি বিক্রি হয়। সব খ’রচা বাদ দিয়ে প্রতিমাসে গড়ে আমা’র ৩০ হাজা’র টাকা লাভ হয়। আমা’র এখানে শুধুমাত্রওয়েস্ট্রা পি জাতে’র মাশরুম আছে।

আবদুল্লাহ  বলেন, বিভিন্ন ফেসবুক পেজ গ্রুপে’র মাধ্যমে বিক্রি করি। অনলাইনে অর্ডা’র নেই, কুরিয়া’র করি। আবা’র অনেকে এসে বাড়ি থেকেই নিয়ে যায়। বেশি’রভাগ মাশরুম যায় রেস্টুরেন্টগুলোতে। ন’রসিংদীতে মাশরুম বাজা’রজাতক’রণ মাশরুম চাষিদে’র প্রশিক্ষণে’র কোনো সেন্টা’র দেখিনি।

আবদুল্লাহ’র বাবা মকবুল হোসেন বলেন, ছেলে’র ‘রকম কাজে আমি খুব খুশি। অবসরে বসে না থেকে উৎপাদনমুখী কাজ ক’রছে, এটাই অনেক।

ন’রসিংদী কৃষি সম্প্রসা’রণ অধিদফতরে’র প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা মাহবুবু’র ‘রশীদ বলেনআঞ্চলিকভাবে ন’রসিংদীতে যারা মাশরুম চাষ করে সহজভাবে বাজা’রজাতক’রণে’র লক্ষ্যে তাদে’রকে বিভিন্ন চাইনিজ রেস্টুরেন্টে’র সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেই। 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।