লাশের ‘গন্ধ’ সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে, তবুও ফেরত দেয়নি বিএসএফ

লাশের ‘গন্ধ’ সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে, তবুও ফেরত দেয়নি বিএসএফ



শফিকুল ইসলাম: পাঁচদিন অতিবাহিত গেলেও বাংলাদেশি যুবক ফরিদুল মন্ডলের লাশ ফেরত দেয়নি ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। এর আগে রবিবার (১৩ ফেব্রæয়ারি) ভোর রাতে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের পূর্ব কাউয়ারচর সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে বাংলাদেশি যুবক নিহত হয়। 


এ ঘটনার পর বিএসএফ ও বিজিবির মধ্যে কয়েক দফায় পতাকা বৈঠকে হয়েছিল। ফরিদুল মন্ডলের মরদেহের হস্তান্তরের বিষয়ে পরেরদিন সোমবার দুপুরে আন্তর্জাতিক ১০৫৪ মেইন পিলারের কাছে ছাটকড়াইবাড়ী সীমান্ত এলাকার নো-ম্যান্স ল্যান্ডে বিজিবি ও বিএসএফ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।  তবে ওই পতাকা বৈঠকের বিষয় বিজিবি গণমাধ্যমকে কিছুই জানায়নি। 


একটি দায়িত্বশীল সূত্রে জানিয়েছে, ঘটনার পরে ফরিদুলের লাশ ভারতীয় বিএসএফ ও পুলিশ বাহিনীর উপস্থিতে সীমান্তের ঘটনাস্থল থেকে ধুবড়ি জেলার একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে ময়নাতদন্তের পর মরদেহটি আবারও কুকুমারা বিএসএফ ক্যাম্পে রাখা হয় বলে জানায়।

এ দিকে ভারতীয় বিএসএফ ফরিদুল মন্ডলের মরদেহ না এনে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রসঙ্গে প্রশ্ন তুলেছিল। পতাকা বৈঠকে লাশ না এনে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট দিবে না বলে বিজিবিকে জানিয়ে দেয় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ)। 


নিহতের স্বজনার জানিয়েছেন, ফরিদুলের লাশ এখনও কুকুমারা ক্যাম্পে আছে। তবে সেখান থেকে এক ধরনের ‘গন্ধ’ সীমান্ত এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। 


ধারণা করা হচ্ছে যে, ফরিদুল মন্ডলের লাশের গন্ধ। স্বজনারা আরও জানায়, নিহতের লাশের বিষয়ে বিজিবি ক্যাম্পে বারবার গেলেও তারাও কিছুই বলে না। আমরা সরকারের কাছে ফরিদুলের লাশটি ফেরতের জন্য দাবী করছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহজাহান আলী বলেন, গুলিতে নিহত ফরিদুল মন্ডলের লাশের জন্য বাড়িতে কান্নার আহাজারি। অথচ পাঁচদিন পার হলেও লাশ ফেরত দেয়নি বিএসএফ। উল্টো ঘটনার পরের দিনেই আরও একটি স্থানে গুলিবর্ষণ করে বিএসএফ। 

জামালপুর ব্যাটালিয়ন-৩৫ বিজিবির দাঁতভাঙ্গা বিওপির সুবেদার আনছার আলী জানান, নিহত বাংলাদেশি যুবকের লাশ ফেরত আনার চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ ফেব্রæয়ারি ভোররাতে উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের পূর্বকাউয়ারচর সীমান্তের আর্ন্তজাতিক ১০৫৭ নম্বর মেইন পিলারের ৩-এস-টি সাব পিলালের কাছে ভারতীয় গরু পারাপারের সময় বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি যুবক ফরিদুল মন্ডলের মৃত্যু হয়। 


নিহত যুবক উপজেলার হরিণধরা গ্রামের মৃত মজিবুর রহমানের ছেলে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিএসএফের গুলিতে নিহত ফরিদুলের লাশ ফেরত দেয়নি।

 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।