জামালপুরে হাজরাবাড়ী পৌরসভার প্রথম মেয়র আওয়ামী লীগের সামসুজ্জামান

 : জামালপুরের মেলান্দহে হাজরাবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে, আদ্রা ও ফুলকোচা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

জামালপুরে হাজরাবাড়ী পৌরসভার প্রথম মেয়র আওয়ামী লীগের সামসুজ্জামান



 হাজরাবাড়ী পৌরসভা গঠনের পর প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের সামসুজ্জামান সুরুজ বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া আদ্রা ইউনিয়নে মো: রফিকুল ইসলাম খোকা ও ফুলকোচা ইউনিয়নে মামুনুর রশীদ চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। 

বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। হাজরাবাড়ী পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সামসুজ্জামান সুরুজ (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৩৫৬ ভোট পেয়ে মেয়র পদে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু (জগ) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৮৪৯ ভোট, আরেক স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্র্থী মো: মাসুদুল হাসান হাজারী (নারিকেল গাছ) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৬৯১ ভোট। অপরদিকে, মেলান্দহ উপজেলার আদ্রা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী মো: রফিকুল ইসলাম খোকা (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৭ হাজার ৭৭৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী স্বতন্ত্র প্রার্থী রকিবুল ইসলাম (মোটরসাইকেল) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৬৫৫ ভোট। আর ফুলকোঁচা ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের মো: মামুনুর রশীদ (নৌকা) প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৯ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: কামাল উদ্দিন (আনারস) প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৯৬৮ ভোট। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা নির্বাচনের ফলাফল নিশ্চিত করেছেন।   

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৩ নভেম্বর পৌরসভা গঠিত হওয়ার পর প্রথমবার অনুষ্ঠিত হওয়া হাজরাবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৬ জন প্রতিদ্বন্দীতা করেন। এদিকে, মেলান্দহ উপজেলার আদ্রা ও ফুলকোচা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৮ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৭০ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ২৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করেন। ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ করা হয়, সবগুলো ভোট কেন্দ্রই সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়। নির্বাচনের সার্বিক আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার সদস্যসহ অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করেন। 



শেয়ার করুন

সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।