SebaBanner

আজ*

হোম
অধিনায়ক বদল করেই বিশ্বকাপে বাজিমাৎ হলো ব্রাজিলের

অধিনায়ক বদলেই বিশ্বকাপে বাজিমাৎ ব্রাজিলের
সেবা ডেস্ক: -এটাই সবার অভ্যাস কোচ তিতের। একেক দিন তিনি এককে জনকে দলের নেতৃত্ব দান করেন। ঠিক তেমনি এ বারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ব্রাজিলের ক্যাপ্টেন ছিলো মার্সেলো। ম্যাচের ফলাফল ১-১-এ ড্র। সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে এই ম্যাচের পর কোস্টারিকার বিপক্ষে নেতৃত্বে রদবদল। এবার অধিনায়ক করা হয় গত বিশ্বকাপের দলপতি থিয়েগো সিলভাকে।

খেলায় ব্রাজিলের জয় ২-০-এ। গ্রুপের তৃতীয় ম্যাচে আগের দুই ক্যাপ্টেনের কারো হাতেই নেই অধিনায়কত্বের আর্ম ব্যান্ড। অবশ্য মার্সেলো সে ম্যাচেই মাঠ ছাড়েন ইনজুরিতে পড়ে। ওই খেলায় দল মাঠে নেমেছে মিরান্ডার পেছন পেছন।

মেক্সিকোর বিপক্ষে দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে নেতৃত্বে নিয়ে আসা হয় থিয়েগো সিলাভাকে। দলের জয় যথারীতি ২-০-এ । তবে শুক্রবার আবার নেতৃত্ব হারালেন থিয়েগো সিলভা। বেলজিয়ামের বিপক্ষে কোর্য়াটার ফাইনালের এই ম্যাচে অধিনায়ক করা হয়েছে ডিফেন্ডার মিরান্ডাকে। বারবার নেতৃত্বে বদলটা কোচ তিতের জন্য নতুন কিছু নয়।

ব্রাজিলের ক্লাব দলের দায়িত্বে থাকার সময় এক মওসুমে ১৭ জনকে অধিনায়কত্বের আর্ম ব্যান্ড পরিয়ে ছিলেন তিনি। অবশ্য ব্রাজিল কখনই একাধিক ক্যাপ্টেনের অধীনে বিশ্বকাপ জিতেনি। তাদের বিশ্বকাপ জয়ের আসরে একজনই ছিলেন নেতৃত্বে।

নেই কাসিমিরো আতঙ্ক ছড়াতে পারেন লুকাকু
দুই হলুদ কার্ডের জন্য আজকের গুরুত্বপূর্ন ম্যাচে খেলতে পারছেন না কাসিমিরো। রিয়াল মাদ্রিদের এই মিডফিল্ডারের অনুপস্থিতি ভোগাতে পারে ব্রাজিল দলকে। কাসিমিরো শুধু আক্রমরষই ভূমিকা রাখেন না, বিপক্ষ দলের আক্রমন ঠেকাতেও সমান দক্ষ তিনি। তিনি না থাকায় বাড়তি সুবিধা পেতে পারেন বেলজিয়ামের স্ট্রাইকার লুকাকু।

এবারের বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত চার গোল করেছেন রোমেলো লুকাকু। বিশাল দেহের এই ফুটবলার যেমন শক্তিশালী তেমনি হেড ওয়ার্কেও দক্ষ। ১১ আন্তর্জাতিক ম্যাচে তার গোল সংখ্যা ১৩টি। এর অধিকাংশই হেডে। ফলে আজ তাকে ঠেকাতে বেগ পেতে হবে থিয়েগো সিলভা এবং মিরান্ডাদের। সত্যিকার চ্যালেঞ্জ আজ ব্রাজিল ডিফেন্ডারদের সামনে। এই আসরে তারা এখন পর্যন্ত মাত্র একটি গোল হজম করেছে। তা সুইজাল্যান্ডের বিপক্ষে।

 মিরান্ডার ফাউল থেকে পেনাল্টি ও গোল।
লুকাকু ছাড়াও বেলজিয়ামের আক্রমণভাগে আছেন হেজার্ড এবং মেরটনেস। এই আসরে বেলজিয়াম চার ম্যাচে ১২ গোল করেছে। অর্থাৎ ম্যাচ প্রতি গড়ে তিন করে। তাই কাসিমিরোর অনুপস্থিতি বিপদে ফেলতে পারে তিতে বাহিনীকে। অবশ্য তিতে জানান, তার রক্ষণ কাজ শুরু হয় ফরোয়ার্ড লাইন থেকে। উপরে নেইমার যদি বল রুখে দিতে পারেন তাহলে সেখানেই কো ডিফেন্ডিংযের কাজ হয়ে গেল।
ফাঁকা মাঠে এগিয়ে যাচ্ছে ব্রাজিল!
এক প্রতিদ্বন্ধী আগেই ছিটকে পড়েছিল। এবারের বিশ্বকাপে কোয়ালিফাইই করতে পারেনি ইতালি। ঘাড়ের ওপর গরম নিঃশ্বাস ফেলা জার্মানিকে বিদায় করেছে মেক্সিকো ও দক্ষিণ কোরিয়া মিলে। ফলে রেকর্ড গড়ার কাজে এখন ফাঁকা মাঠ ব্রাজিলের সামনে। মেক্সিকোকে দ্বিতীয় রাউন্ডে হারিয়ে তারা এখন আজ শেষ আটের ম্যাচ বেলজিয়ামের সামনে।

এই দলের বিপক্ষে তাদের সর্বশেষ ম্যাচ ২০০২ সালে। যেখানে রোনালদো ও রোনালদিনহোদের জয় ছিল ২-০-এ।
মেক্সিকোকে ২-০-এ হারিয়ে ব্রাজিল এখন সব বিশ্বকাপ মিলে ২২৮ গোলের মালিক। ২২৬ গোল আছে জার্মানির। এবার রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত ৭ গোল করেছে ব্রাজিল। শুক্রবার বেলজিয়ামের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে জার্মানির খেলা ১০৯ বিশ্বকাপ ম্যাচের সমকক্ষ হবে ব্রাজিল। এবারের আসরের আগ পর্যন্ত জার্মানি ১০৬ ও ব্রাজিল ১০৪টি ম্যাচ খেলেছিল বিশ্বকাপে।

ফুটবরের সর্ববৃহৎ আসরে ম্যাচ জয়ের ক্ষেত্রে সবার উপরে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। তারা জিতেছে ৭৩টি ম্যাচ। যা জার্মানদের চেয়ে ৬ বেশি। জার্মানির বিদায় হয়েছে এবারের প্রথম রাউন্ডে। ইতালী রাশিয়ায় আসার টিকিটই পায়নি। ফলে ২০২২ সাল পর্যন্ত এই রেকর্ডে এগিয়ে থাকবে পেলে -রোনালদো , নেইমারের দেশই। এবার যদি ব্রাজিল বিশ্বকাপ নাও জিততে পারে তবুও এবার তাদের পাঁচবারের ট্রফি জয়ের রেকর্ড কেউ ছুতে পারবে না। চার বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি ও জার্মানি এবার রেসের বাইরে।

চলমান বিশ্বকাপে ব্রাজিলের জালে মাত্র একটিবার বল গেছে। তা তাদের মতো অপর ল্যাতিন দেশ উরুগুয়ের মতোই। মেক্সির্কো বিপক্ষে জয়ের মাধ্যমে গত ২৮ বছরের রেকর্ড অব্যাহত রাখলো ব্রাজিল। ১৯৯০ সালের পর থেকে তারা কখনো বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে হারেনি। ৯-এ তাদেরকে এই রাউন্ড থেকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছিল ম্যারাডোনা ও ক্যানিজিয়ার আর্জেন্টিনা। ওই খেলায় ম্যারাডোনার পাসে জয় সূচক গোল করেছিলেন ক্যানিজিয়া।

তিতে বাহিনীর আজকের প্রতিপক্ষ বেলজিয়াম ১৯৮৬ সালের পর আর কোয়ার্টার ফাইনলের ম্যাচ জিততে পারেনি। সেবার মেক্সিকোতে তাদের সেমিতে হারের স্বাদ আর্জেন্টিনা। ম্যারাডোনার জোড়া গোলে তাদের শেষ হয়েছিল তাদের ৮৬ এর বিশ্বকাপ মিশন।
শুক্রবার কোচ তিতের ২৬ তম ম্যাচ। আগের ২৫ খেলায় তারা ২০টিতে জিতেছিল। ড্র চারটিতে। হেরেছে মাত্র এক খেলায়।


, , ,