বকশীগঞ্জে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানী, সেই মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার!

বকশীগঞ্জে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানী, সেই মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার!

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি: জামালপুরের বকশীগঞ্জে এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগে মাদ্রাসার শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। বুধবার রাত ১০ টার দিকে পৌর শহরের বাস স্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় বকশীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত ওই শিক্ষকের নাম মো. রুকুনুজ্জামান। সে বাট্টাজোর ইউনিয়নের শেফালী মফিজ মহিলা আলিম মাদ্রাসার জুনিয়র শিক্ষক। তার বাড়ি বকশীগঞ্জ ইউনিয়নের সূর্যনগর গ্রামে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ জুলাই দুপুরে শেফালী মফিজ মহিলা আলিম মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রীকে মাদ্রাসা সংলগ্ন চন্দ্রাবাজ গ্রামের নিজ ঘরে একা পেয়ে শ্লীলতাহানী করে। এ সময় ওই ছাত্রীর ডাক চিৎকারে বাড়ির লোকজন এগিয়ে এলে শিক্ষক রুকুনুজ্জামান দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

ঘটনাটি জানাজানি হলে পরদিন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ওই ছাত্রী। অভিযোগের পর মাদ্রাসার পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত দল ঘটনার সত্যতা পেলে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবদুর রশিদ ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে ইউএনও’র নিকট লিখিত অভিযোগ দেন।

এদিকে অভিযুক্ত মাদ্রাসার শিক্ষক রুকুনুজ্জামানের বিচার চেয়ে গত বুধবার বিকালে স্মারকলিপি প্রদান করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

স্মারকলিপি প্রদানের পর বুধবার রাতেই শিক্ষক রুকুনুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে বকশীগঞ্জ থানা পুলিশ।

বকশীগঞ্জ থানার ওসি একেএম মাহবুব আলম জানান, মাদ্রাসা ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় একটি মামলা রূজু হয়েছে এবং গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ওই শিক্ষককে জামালপুর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।


 -সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0 comments

Comments Please