উল্লাপাড়ায় এগারো গ্রামের ১৫’শ কৃষকের মুখে ফুটলো হাঁসি

উল্লাপাড়ায় এগারো গ্রামের ১৫’শ কৃষকের মুখে ফুটলো হাঁসি



রাজু আহমেদ সাহান-উল্লাপাড়া থেকে: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের ঝবঝবিয়া নদীর পানি থেকে ফসল রক্ষা বাঁধের নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। উপজেলা পরিষদের স্থানীয় সরকার বিভাগের এলজিইডি’র ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পাদন প্রকল্পের অর্থায়নে উপজেলার পুঠিয়া- ফলিয়া পর্যন্ত প্রায় ১১ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ পুণঃ সংস্কারের কাজ বাস্তবায়ন হতে চলেছে। এই বাঁধ নির্মাণের ফলে পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের এগারোটি গ্রামের প্রায় ১৫’শ কৃষকের ৭ শত ৫০ হেক্টর জমির ফসল রক্ষা পাবে। 
সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, উপজেলার পূর্ণিমাগাঁতী ইউনিয়নের বুক চিরে প্রবাহমান ঝবঝবিয়া নদীর পানির ¯্রােতে ইচ্ছেমত যে কোন সময় নদীর গতি পথ পরিবর্তন হওয়ায় উপজেলার নদী তীরের পুঠিয়া, ফলিয়া, ঘিয়ালা, বামুনঘিয়ালা, গোয়ালজানি, হাটদেলুয়া, বেতুয়া, সাইবেরিয়া, ভেংড়ীগ্রাম সহ এগারোটি গ্রামের মানুষ ছিল অসহায়। প্রায় এক যুগ আগে কৃষকের ফসল রক্ষার জন্য এই নদীর পাশ দিয়ে ১২ কিঃ মিঃ বাঁধ নির্মাণ করে স্থানীয় সরকার। বিভিন্ন সময়ে অতি বন্যার কারণে বাঁধের বেশকিছু জায়গা ভেঙ্গে যায়। ফলে উজান থেকে নেমে আসা বৃষ্টি, বন্যা ও আগাম বন্যার পানিতে এ সমস্ত এলাকার কৃষকের ফসল ঘরে উঠানো ছিল অনিশ্চিত। প্রতি বছরই প্রায় ২-৩ শত হেক্টর জমির আমন ফসল পানিতে তলিয়ে যেত। শুধু তাই নয় প্রচন্ড পানির তোড়ে ভাঙতো নদীর তীর, নদী গর্ভে বিলীন হতো ফসলি জমি। কৃষি ও কৃষকের এই দূর্ভোগ লাঘবে স্থানীয় সরকারের এলজিইডি বিভাগ চলতি অর্থবছরে ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলার পুঠিয়া-ফলিয়া বেড়িবাঁধ উপ-প্রকল্প পুণঃ সংস্কারের উদ্যোগ নেয়। বাজেট স্বল্পতায় স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে আরো ৬৫০ মিটার অতিরিক্ত বাঁধ নির্মাণ করেন স্থানীয় উপ-প্রকল্পের সমবায়ের সদস্যরা। এ বাঁধ নির্মিত হলে বর্ষা মৌসুমে এলাকার কৃষকের ফসল উৎপাদনে কোন সমস্যা থাকবে না। 
ঘিয়ালা গ্রামের কৃষক আব্দুর রাজ্জাক জানান, প্রথমবারে বাঁধ নির্মাণের পর আমাদের ফসলি জমিতে বছরে তিনটি করে ফসল উৎপাদন করতে পারতাম। কিন্তু পরবর্তীতে বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় নিচু জমিতে একটির বেশি ফসল হয় না। তাতে আমরা বর্তমানে অর্থনৈতিকভাবে চরম ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে পড়েছি।
পুঠিয়া গ্রামের কৃষক আকবর আলী জানান, প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে জমির ফসলসহ নিচু বাড়ী-ঘর ও রাস্তাঘাট প্লাবিত হয়ে অনেক সময় নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। বাঁধ পুণঃ সংস্কারের হলে এলাকার কৃষক তাদের উৎপাদিত ফসল ঘরে তোলার নিশ্চয়তা পাবে। বাঁধ পুণঃ সংস্কারের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার কৃষি বান্ধব সরকারকে ধন্যবাদ জানান সুবিধাভোগি এলাকাবাসি।
পুঠিয়া-ফলিয়া বাঁধ পুনঃ সংস্কার উপ-প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন জানান, বাঁধটি পুণঃ সংস্কারের ফলে বর্ষা মৌসুমে এলাকার কৃষকের ফসল উৎপাদনে দুর্ভোগ অনেকাংশে লাঘব হবে। বাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ হলে কৃষক তাদের কাঙ্খিত সুফল পাবে।
উল্লাপাড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম শফি জানান, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। কৃষকের যে কোন সমস্যা সমাধানে তৎপর জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার। কৃষক বাঁচলেই দেশ বাঁচবে।
উল্লাপাড়া উপজেলা প্রকৌশলী মাঈন উদ্দিন জানান, উপজেলার পূর্নিমাগাঁতী ইউনিয়নের পুঠিয়া-ফলিয়া বেড়িবাঁধ পুণঃ সংস্কার হলে এলাকার প্রায় ১৫’শ কৃষকের  বর্ষা মৌসুমে ফসল উৎপাদনে কোন সমস্যা থাকবে না। স্থানীয় সরকারের এলজিইডি বিভাগ থেকে টেকশই ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পাদন প্রকল্পের অর্থায়ণে এ বাঁধ পুণঃ নির্মাণ করা হচ্ছে। 
 

শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0 comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।