সুন্দরবনে আঘাত হেনেছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‌‘বুলবুল’

সুন্দরবনে আঘাত হেনেছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‌‘বুলবুল’
সেবা ডেস্ক: নিম্নচাপ থেকে সৃষ্ট অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এরই মধ্যে ভারতীয় উপকূলে আঘাত হেনেছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অগ্রবর্তী অংশ সুন্দরবনের সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট অংশেও আঘাত হানতে শুরু করেছে।

এর ফলে সাগরে পানির উচ্চতা বেড়েছে ৪ থেকে ৫ ফুট। এখন ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অগ্রবর্তী অংশ সুন্দরবনের বঙ্গবন্ধু আইল্যান্ড, হিরণ পয়েন্ট, দুবলারচর, মেহের আলীর চর, অফিসকিল্লা, মাঝেরচর, আলোরকোল, মরণেরচরে প্রভাব বিস্তার করছে। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ক্রমেই বাড়ছে ঝড়ের তীব্রতা। দুবলারচরের অস্থায়ী শুঁটকিপল্লীতে দমকা বাতাস বইছে।

ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) দুবলারচর ভিএইচএফ স্টেশনের অপারেটর মো. কাশেম জানান, বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের দুবলারচরের অস্থায়ী শুঁটকিপল্লী এলাকার আলোরকোল, মেহেরআলীর চর, মাঝেরকেল্লা, অফিসকিল্লা ও শেলারচরে ২২ বছর আগে নির্মিত হওয়া জরাজীর্ণ ৫টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রে ৬ হাজারেরও বেশি জেলে আশ্রয় নিতে পেরেছে।

এসব আশ্রয় কেন্দ্রে স্থান সংকুলান না হওয়ায় শুঁটকিপল্লীসহ ঝড়ের কারণে সাগর থেকে আসা আরো কয়েক হাজার জেলে নৌযানে করে ছোট ছোট খালে আশ্রয় নিয়েছে। ঝড়ের তীব্রতা বাড়ায় নৌযানে সুন্দরবনের খালে আশ্রয় নেয়া জেলেদের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।

এদিকে সুন্দরবনের ভারতীয় অংশে এরই মধ্যে তাণ্ডব শুরু করেছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, উপকূলে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বৃষ্টি। ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে উত্তর ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুরের উপকূল এলাকায়। সেসব জায়গায় তৈরি রয়েছে দেশটির পুলিশ এবং প্রশাসনিক কর্তারা।

প্রবল ঝড়ে এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি বাড়ি-দোকান ও গাছ ভেঙে পড়েছে। আলিপুর আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস মতো, প্রায় ঘন্টাখানেক সেখানে ধ্বংসলীলা চালাচ্ছে ‌‘সুপার সাইক্লোন’ বুলবুল। এরপর সেটি ধীরে ধীরে আরও স্থলভাবে প্রবেশ করবে বলে জানা যাচ্ছে। তখন ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়বে।

 -সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0 comments

Comments Please