“প্রিয় নবী (সা.) ছিলেন বিশ্বশান্তি মানবতা ও কল্যাণের পথ প্রদর্শক”

“প্রিয় নবী (সা.) ছিলেন বিশ্বশান্তি মানবতা ও কল্যাণের পথ প্রদর্শক”



লিয়াকত হোসাইন লায়ন, জামালপুর।। বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো: ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি বলেছেন, আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন বিশ্বশান্তি, মানবতা ও কল্যাণের পথ প্রদর্শক। 

তিনি বঞ্চিত, নিপীড়িত ও লাঞ্ছিত মানবতার আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছিলেন। আজকের আশান্ত পৃথিবীতে শান্তি খুঁজে পেতে রাসুলুল্লাহ সা. এর দেখানো আদর্শ অনুসরণ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আল্লাহ তায়ালা তাঁকে সারা বিশ জগতের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতা মহানবী সা.এর প্রকৃত শিক্ষা ও আদর্শ প্রচারের জন্য ইসলামি ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছেন। 

প্রতিমন্ত্রী ১৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব সাহানে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ১৪৪৩ হিজরি উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত পক্ষকাল ব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

ধর্মপ্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদে ১৯৭২ সালে প্রধান অতিথি হিসেবে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলের শুভ উদ্বোধন করে বিশ্বনবী (সা.) এর আদর্শ প্রচার ও দ্বীনী খেদমতের এক নবদিগন্তের দ্বার উন্মোচন করেন। 

এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে জাতীয় পর্যায়ে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালিত হয়ে আসছে। 

এতে সভাপতিত্ব করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও সচিবের দায়িত্বরত মু: আ: আউয়াল হাওলাদার। 

আলোচক অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম শায়খ আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ডের গভর্নর মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ রুহুল আমীন, ড. মাওলানা মুহাম্মদ কাফিলুদ্দীন সরকার সালেহী । 

স্বাগত বক্তা ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. মো: মুশফিকুর রহমান। 

এছাড়াও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালকবৃন্দ ও সাধারণ কর্মকর্তা কর্মচারিগণ উপস্থিত ছিলেন। 

অন্যদিকে অনুষ্ঠান শেষে বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিন চত্বরে আয়োজিত পক্ষকালব্যাপী ইসলামি বইমেলার উদ্বোধন করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত পক্ষকালব্যাপী অন্যান্য অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধি কমপ্লেক্সে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ১৪৪৩ হিজরি উদযাপন, ১৫ দিনব্যাপী ওয়াজ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, বাংলাদেশ বেতারের সাথে যৌথ প্রযোজনায় সেমিনার, ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, ইসলামি বইমেলার আয়োজন, ক্বিরাআত মাহফিল, হামদ-না’ত ও স্বরচিত কবিতা পাঠের মাহফিল ইত্যাদি।

এতে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সকল বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, ৫০ টি ইসলামিক মিশন ও ৭ টি ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমিতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে।  


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

,

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।