বকশীগঞ্জের ২ ইউপিতে নৌকা ডুবাতে ব্যর্থ হলো নৌকা বিরোধীরা

বকশীগঞ্জের ২ ইউপিতে নৌকা ডুবাতে ব্যর্থ হলো নৌকা বিরোধীরা



নূরুজ্জামান খান: জামালপুরে’র বকশীগঞ্জে আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলো ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। আজ ২৬ ডিসেম্ব’র চতুর্থ ধাপে বকশীগঞ্জ সদ’র ও বাট্টাজোড় ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রোববার সকাল থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হয়। ভোট গ্রহণ শেষে রাতে দুই ইউনিয়নে ফলাফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশিকুর রহমান সরকার। ফলাফলে বকশীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের আলমগীর কবির আলমাছ নৌকা প্রকীকে ১ হাজার ৯৬৬ প্রতীকে ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›িদ্ব মো. সুমন আনারস প্রতীকে পান ১ হাজার ৭৮৬ ভোট।

অপরদিকে বাট্টাজোড় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোখলেছুর রহমান জুয়েল তালুকদার নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ৪৫৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।  

তার নিকটতম প্রতিদ্ব›িদ্ব জাতীয় পার্টির মুছা মিয়া লাঙল প্রতীকে পান ৩ হাজার ৪৯০ ভোট ।


আরও পড়ুন:

বকশীগঞ্জের দুই ইউপিতে নৌকা ডোবাতে পারবেন কি স্বতন্ত্র প্রার্থীরা?

বকশীগঞ্জে নৌকার প্রার্থীর কর্মীদের ওপর হামলা! আহত-৮


দীর্ঘ ১০ বছ’র প’র এই দুই ইউনিয়নে নির্বাচন হওয়ায় ভোটা’রদে’র মাঝে নির্বাচনী আমেজ পুরোদমে শুরু হয়ে ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হয়েছে।এবারে’র নির্বাচনে চেয়া’রম্যান পদে আওয়ামী লীগ , বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা অংশ নিয়েছিলেন। 

চতুর্থ ধাপে’র ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বকশীগঞ্জ সদ’র ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে’র আহ্বায়ক আলমগী’র কবি’র আলমাছ। আওয়ামী লীগে’র প্রার্থী আলমাছকে ঠেকাতে প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে মাঠে ছিল আরো ৫ প্রার্থী। 

এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে’র কোন বিদ্রোহী না থাকায় ফু’রফুরে মেজাজে ছিলেন আওয়ামী লীগে’র প্রার্থী আলমগী’র কবি’র আলমাছ। তবে ভোটে’র মাঠে নৌকা’র প্রার্থীকে ধাক্কা দিতে মাঠ কাপিয়েছিলেন বিএনপি’র স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু মোতালেব মন্ডল। তিনি মোট’রসাইকেল প্রতীক নিয়ে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে কাজ করেও ব্যর্থ হয়েছেন। 

অপ’রদিকে বাট্টজোড় ইউনিয়নে ত্রিমুখি লড়াইয়ে’র সম্ভাবনা ছিল এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয় ভোটা’রগণ। এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে’র প্রার্থী মোখলেসুর রহমান জুয়েল তালুকদার ছাড়াও আওয়ামী লীগে’র তিন বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল। এছাড়াও মাঠে ছিল জাতীয় পার্টি’র মো. মুছা মিয়া, বিএনপি’র স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতালেব স’রকা’র সহ আরো দুই জন। সবাই কাজ ক’রছেন নৌকা’র প্রার্থী’র বিপক্ষে নৌকা ডোবানো’র জন্য। কিন্তু এই ইউনিয়নেও ব্যর্থ হয়েছেন নৌকার বিপক্ষে থাকা প্রার্থীরা। 

এই ইউনিয়নে শক্ত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আরও ছিলেন সাবেক চেয়া’রম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে’র সদস্য প্রবীণ নেতা আমজাদ হোসেন । এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগে’র উপদেষ্টা মী’র মো.জহি’র উদ্দিন ও উপজেলা আওয়ামী লীগে’র সদস্য নাজমুল হক ফরিদ বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে দলে’র বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে ছিলেন।

যে যা’র যা’র মত দিন-রাত পরিশ্রম ক’রছেন নির্বাচনে বিজয়ী হওয়া’র জন্য।

আওয়ামী লীগে’র প্রার্থীকে জয়ী ক’রতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা শ্রমিক লীগ, উপজেলা ছাত্রলীগে’র নেতা কর্মীরা নৌকা’র পক্ষে প্রচা’র-প্রচা’রণা ছিল খুবই জোড়ালো। ঐতিহ্যবাহী তালুকদা’র বাড়ি’র সন্তান জুয়েল তালুকদা’র দলে’র বাইরে পরিবারে’র ইমেজকে ভোটারে’র সামনে তুলে ধরে ভোট প্রার্থনা করে নৌকাকে ডুবতে দেননি।

 


শেয়ার করুন

-সেবা হট নিউজ: সত্য প্রকাশে আপোষহীন

0comments

মন্তব্য করুন

খবর/তথ্যের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, সেবা হট নিউজ এর দায়ভার কখনই নেবে না।