বিএনপি চেয়ারপারসন হতে যাচ্ছে ড. খন্দকার মোশাররফ, নেপথ্যে ইউএস রাষ্ট্রদূত

বিএনপি চেয়ারপারসন হতে যাচ্ছে ড. খন্দকার মোশাররফ, নেপথ্যে ইউএস রাষ্ট্রদূত

সেবা ডেস্ক: আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপিকে যেকোন পন্থায় ক্ষমতায় আনতে ইতোমধ্যেই স্বরযন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে বাংলাদেশে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস ভবন।

অতিসম্প্রতি সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য দুটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রচার করে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট। 

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি প্রার্থীদের পরাজয়ে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থে আঘাত লাগায় সরকারকে আন্তর্জাতিকভাবে চাপে ফেলতে অপপ্রচার চালায় মার্কিন দূতাবাস।

সূত্র বলছে, এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি পুনর্গঠন করতে দলটির সিনিয়র নেতাদের সাথে একাধিক গোপন বৈঠক করেছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট। 

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনে দলটির ব্যর্থতা, আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াও করতে বিএনপি নেত-কর্মীদের অনীহা, দল পরিচালনায় তারেক রহমানের অযোগ্যতা এবং নেতৃত্ব পরিবর্তনের তৃণমূল বিএনপির দীর্ঘদিনের দাবি বাস্তবায়ন করতে বিএনপির সিনিয়র নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বাসায় সম্প্রতি গোপন একটি বৈঠক করেছেন মার্শা বার্নিকাট।

জানা যায়, দল পরিচালনায় চরম অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন তারেক রহমান। আন্দোলন কর্মসূচীর নামে কথায় কথায় বিএনপিকে চাঁন্দা পার্টিতে পরিণত করেছেন তারেক রহমান। দলের নেত্রী জেলে দিন পার করছেন, অথচ তারেক লন্ডনে বসে রাজার হালে দিন কাটাচ্ছেন। নিয়মিত জুয়া খেলছেন, পার্টি করছেন। 

খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে তার কোন পরিকল্পনা বা কর্মসূচী নেই। খালেদা জিয়া জেলে থাকায় দলটিও ঝিমিয়ে পড়েছে। এদিকে শেখ হাসিনার উন্নয়নমূলক শাসনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। একাধিক পরিসংখ্যানে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশের চেয়ে এগিয়ে গেছে। আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য হলে আওয়ামী লীগের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। 

আওয়ামী লীগ একমাত্র দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক দল যারা বাংলাদেশের স্বার্থ রক্ষায় কোন ছাড় দিতে রাজি নয়। আওয়ামী লীগ সরকারের কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের স্বার্থ হাসিলে ক্রমাগতভাবে ব্যর্থ হচ্ছে। তাই আওয়ামী লীগ সরকারকে হটিয়ে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাতে পরিকল্পনা করছে মার্কিন দূতাবাস।

সম্প্রতি এই সংক্রান্ত একটি গোপন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বাসায়। গোপন সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট। বৈঠক সূত্রে জানা যায়, তারেক রহমান দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী হওয়ায় একাধিক বিদেশি রাষ্ট্রগুলো বিএনপির কোন কথাই শুনছে না। 

তাছাড়া তারেকের দুর্নীতিতে ক্ষিপ্ত বিদেশি রাষ্ট্রগুলো। তাদেরও পরামর্শ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতই। তারেক রহমানকে বাদ দিয়ে আপাতত ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন বানাতে হবে। এরপরই নির্বাচনে বিএনপিকে জিতিয়ে দিতে সাধ্যমত চেষ্টা করবেন বলে মার্শা বার্নিকাট ওয়াদা করেছেন। 

বিনিময়ে ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশে সব বড় বড় অবকাঠামো নির্মাণের কাজ যুক্তরাষ্ট্রকে দিতে হবে, বাংলাদেশে গোপনে সামরিক ঘাঁটি বসানোর অনুমতি দিতে হবে, যুক্তরাষ্ট্র থেকে সব বাহিনীর অস্ত্র কিনতে হবে, যুক্তরাষ্ট্রের পরম মিত্র ইসরাইলকে স্বীকৃতি দিতে হবে। 

পাশাপাশি চীনের সাথে সকল ধরনের বাণিজ্য প্রত্যাহার করতে হবে। মার্শা বার্নিকাটের সকল শর্ত মেনে নিয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন হওয়ার তীব্র ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলে বৈঠক সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।



,
themeforestthemeforest

ছবি কথা বলে